Wriddhiman Saha: উত্তেজিত শামি, ইডেন এখন আর ঘরের মাঠ নয় ঋদ্ধির

আজকাল ওয়েবডেস্ক: স্মৃতি বিজড়িত ইডেন। বহু ম্যাচ খেলেছেন দু'জনেই। বাংলার হয়ে একাধিকবার একসঙ্গে লড়েছেন। জিতিয়েছেন ম্যাচ। এবার সেই প্রিয় ইডেনেই গুজরাটের জার্সিতে নামবেন ঋদ্ধিমান সাহা এবং মহম্মদ শামি। তবে ক্রিকেটের নন্দনকানন নিয়ে ভিন্ন মত বাংলার দুই ঘরের ছেলের। কলকাতার ছেলে হলেও কালকের ম্যাচকে অ্যাওয়ে ম্যাচ হিসেবেই দেখছেন পাপালি। কিছুটা অভিমানের সুরেই ঋদ্ধিমান বলেন, 'আমি এখন গুজরাত টাইটান্সের হয়ে খেলছি। তাই মোতেরা আমার হোম গ্রাউন্ড। আমি কেকেআরের হয়ে খেলি না, তাই ইডেন আমার কাছে অ্যাওয়ে গ্রাউন্ড। এটা ঠিক যে আমি ইডেনে অনেক ম্যাচ খেলেছি। তবে আগামীকালের ম্যাচ আমার কাছে অ্যাওয়ে ম্যাচের মতোই।' ঋদ্ধিমান ইডেনে ফেরা নিয়ে খুব একটা উচ্ছ্বাস না দেখলেও চেনা মাঠে নামার আগে আবেগতাড়িত শামি। তিনি বলেন, 'ইডেনে ফিরতে পেরে আমি ভীষণ খুশি এবং উত্তেজিত। এই মাঠেই আমার অভিষেক হয়েছিল। এখানে আমি অনেক ম্যাচ খেলেছি। ভারতের প্রায় সব মাঠেই খেলেছি। কিন্তু ঘরের মাঠে খেলার অনুভূতি আলাদা।'

প্রথম প্লে অফের ইউএসপি দুই বাংলার ক্রিকেটার। কেকেআরের অনুপস্থিতিতে কলকাতার ক্রিকেটপ্রেমীদের অন্যতম আকর্ষণ ঋদ্ধিমান এবং শামি। এবারের আইপিএলে গুজরাত টাইটান্সের হয়ে দুরন্ত ছন্দে রয়েছেন বাংলার কিপার ব্যাটার। ৯ ইনিংসে করে ফেলেছেন ৩১২ রান। পাশাপাশি‌ গ্লাভস হাতেও ভরসা যোগাচ্ছেন হার্দিক পাণ্ডয়ার দলকে। গুজরাতের প্লে অফে যাওয়ার পিছনেও ঋদ্ধির অবদান অনস্বীকার্য।

তাঁর ব্যাটে ভর করে পাওয়ার প্লেতে বড় রান তুলছে গুজরাট। মঙ্গলবারও সেই লক্ষ্য নিয়েই নামবেন। ঋদ্ধি বলেন, 'এই মুহূর্তে আমি শুধুই আইপিএল নিয়ে ভাবছি। দলের হয়ে সফল হলে ভাল লাগে। শতরান বা অর্ধশতরানের আলাদা অনুভূতি। তবে আমার কাছে সবার আগে দল। পরে ব্যক্তিগত সাফল্য। আমি ভারতীয় দলের নির্বাচন নিয়ে এখন একদমই চিন্তিত নই। শুধু আগামীকালের ম্যাচ  নিয়ে ভাবছি। আমি সেরাটা দেওয়ার জন‍্য পুরোপুরি প্রস্তুত। পাওয়ার প্লে-তে মারকাটারি ব্যাটিং করতে আমার ভাল লাগে। দলকে সাহায্য করতে পারলেই খুশি হব। শুরুতে শুভমন গিলের সঙ্গে ভাল পার্টনারশিপ করতে পারলে, বাকিদের জন্য কাজটা অনেকটা সহজ হয়ে যায়।' এদিন গুজরাট দল ইডেনে ঢোকার কিছুক্ষণ পরে মাঠে পৌঁছন ঋদ্ধি। নেটে বেশ কিছুক্ষণ প্র্যাকটিস করতে দেখা যায় বাংলার উইকেটকিপারকে।

এদিন গুজরাট দল ইডেনে ঢোকার কিছুক্ষণ পরে মাঠে পৌঁছন ঋদ্ধি। নেটে বেশ কিছুক্ষণ ব্যাট করতে দেখা যায় বাংলার উইকেটকিপারকে। খোশ মেজাজে পাওয়া যায় বাংলার দুই ক্রিকেটারকে। মঙ্গলবার ছন্দে থাকা জস বাটলারের বিরুদ্ধে বল করতে হবে শামিদের। নিজের দিনে একাই ম্যাচ শেষ করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন বিধ্বংসী ব্যাটার।‌ তাঁর বিরুদ্ধে কী নির্দিষ্ট কোনও পরিকল্পনা রয়েছে? শামি বলেন, 'উল্টো দিকে কে ব্যাট করছে সেটা দেখি না। কে কত রান করল সেই নিয়েও ভাবি না। প্রত্যেক ব্যাটারের দুর্বলতা আছে। সেটা অনুযায়ী বল করার চেষ্টা করি।' মঙ্গল সন্ধেয় শামি, বাটলার দ্বৈরথে কে জিতবে তার জন্য আর কয়েকঘন্টার অপেক্ষা।

আকর্ষণীয় খবর