বিবাহবিচ্ছেদের মামলা চলাকালীন গল্ফগ্রিনে গৃহবধূর দেহ উদ্ধার, আত্মহত্যা না খুন? উঠছে প্রশ্ন

আজকাল ওয়েবডেস্ক: গল্ফগ্রিনের বন্ধ ঘর থেকে উদ্ধার গৃহবধূর মৃতদেহ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান আত্মঘাতী হয়েছেন ওই মহিলা। তবে কী কারণে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। গোটা ঘটনা তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

গল্ফগ্রিনের বিক্রমগড়ের এক আবাসনের তিনতলায় আত্মীয়ার ফ্ল্যাটে থাকতেন রিনা সাহা নামে এক বছর চল্লিশের মহিলা। তাঁর স্বামী এবং ১১ বছরের এক সন্তান অন্যত্র থাকত। ওই মহিলা যেই বহুতলে থাকতেন তার নিচের তলায় থাকতেন মহিলার মা ও বাবা। কয়েকদিন ধরে মহিলার কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তাঁর স্বামী এবং ছেলে হেঁটে এসে ডাকাডাকি করলেও দরজা খোলেননি বলে জানান তারা। তাতেই সন্দেহ হয়। প্রতিবেশিরা লক্ষ্য করেন মহিলার ফ্ল্যাটের বাতানুকূল যন্ত্র থেকে ক্রমাগত জল পড়ছে। এরপরই পরিবারের সদস্যদের জানান ওই প্রতিবেশিরা। এরপর খবর দেওয়া হয় গল্ফগ্রিন থানায়। পুলিশ এসে দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকতেই মহিলার দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মৃতার স্বামী জানান, তাঁর স্ত্রী মানসিকভাবে অসুস্থ। তাঁদের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছিল। যদিও বিবাহ বিচ্ছেদের কারণ নিয়ে কোনও কিছুই জানাননি ওই ব্যক্তি। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, আত্মঘাতী হয়েছেন ওই মহিলা। তবে এটা নিশ্চিত করতে ময়না তদন্ত রিপোর্টের অপেক্ষায় রয়েছে পুলিশকর্মীরা। তবে প্রশ্ন উঠছে, একই অবস্থানে থাকা সত্বেও কেন মেয়ের খোঁজ নিলেন না মা ও বাবা? মহিলার স্বামী ডাকাডাকি করলেও সাড়া না পাওয়ার পরও কেন যথাযথ ব্যবস্থা নিলেন না? এই প্রশ্নগুলিকে সামনে রেখেই গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।