আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে 'টুম্পা সোনা' গানে উদ্দাম নাচের জেরে শাস্তি দেওয়া হল ৫ জনকে। স্কুলে নবম থেকে দ্বাদশের পড়ুয়াদের ক্লাস চালু হলেও কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় এখনও চালু হয়নি। সরস্বতী পুজোর দিন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পুজো উপলক্ষে জড়ো হয়েছিলেন একাধিক ছাত্র–ছাত্রীরা। আর সেখানেই আনন্দ অনুষ্ঠান করতে গিয়ে ঘটে যায় বিপত্তি। ক্যাম্পাসে চটুল গান ‘‌টুম্পা সোনা’‌ বাজিয়ে উদ্দাম নাচে মেতে ওঠেন একদল ছাত্র–ছাত্রীর দল।   এবিষয়ে, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাঁরা পুজোর কোনও অনুমতি দেয়নি। তা সত্ত্বেও পুজো হয়েছে এবং পুজো চলাকালীন একদল ছেলে মেয়েরা টুম্পা সোনা গানের সঙ্গে উদ্দাম নাচ করে বলে অভিযোগ। বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাসে ডিজে বাজিয়ে ‘টুম্পা সোনা’ গানের তালে নাচের ছবি ভাইরাল হতেই নড়েচড়ে বসে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনার তদন্তে তৈরি হয় বিশেষ কমিটি। কমিটির রিপোর্টে সরস্বতী পুজো আয়োজক ৫ জনের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ করা হয়েছে। উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী ব্যানার্জি জানিয়েছেন, ‘‌আগামী দুই বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ক্যাম্পাসে ওই ৫ জন ঢুকতে পারবে না।’‌ সাসপেন্ড হওয়া পাঁচজনের নাম মণিশংকর মণ্ডল, রাজা মাণ্ডি, দেবর্ষি রায়, তীর্থপ্রতীম সাহা এবং রনি ঘোষ। এই ঘটনায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএমসিপি ছাত্র নেতাদের কথায়, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে কেউ কেউ চক্রান্ত করে সরস্বতী পুজো বন্ধ করে দিতে চাইছিলেন। সরস্বতী পুজোর অনুমতি চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে চিঠিও দেওয়া হয়েছিল। যদিও উপাচার্য সাফ জানিয়েছেন, সরস্বতী পুজো করার বিষয়ে কোনও সংগঠন বা ছাত্রছাত্রীদের অনুমতি দেওয়া হয়নি। প্রাক্তন উপাচার্যদের মতে, চটুল গানে উদ্দাম নৃত্য করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য নষ্ট করেছে বর্তমান ছাত্র–ছাত্রীরা।

জনপ্রিয়

Back To Top