আজকালের প্রতিবেদন: আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে ঠেকাতে আবার জোট গড়ার ডাক দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক নারী দিবসে তৃণমূল কংগ্রেসের এক অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, সব আঞ্চলিক দলকে নিয়ে আমাদের জোট গড়তেই হবে। বিজেপি–‌র সাম্প্রদায়িক রাজনীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে হবে। বিজেপি–‌কে না সরালে দেশের ভবিষ্যৎ অন্ধকার। মুখ্যমন্ত্রী একথা বলার পাশাপাশি সিপিএম–‌কে একহাত নিয়েছেন। বলেছেন, আপনারা যত আত্মসমর্পণ করছেন, ততই বিলীন হয়ে যাবেন। বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলেই কেন্দ্রীয় সরকার এজেন্সি দিয়ে গ্রেপ্তার করছে। আমাদের হেনস্থা করছে। কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করেছে। আপনাদেরও না হয় কয়েকজন গ্রেপ্তার হত। কিন্তু এভাবে আত্মসমর্পণ না করে জোটের পথেই এগোনো উচিত বলে মনে করেন মমতা। এসপ্ল্যানেডে গান্ধী মূর্তির নিচে এদিন বিরাট মাপের জনসভার আয়োজন করে তৃণমূল কংগ্রেসের মহিলা সংগঠন। সেখানেই বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও মোদির বিরুদ্ধে তীব্র ভাষায় সমালোচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, ত্রিপুরায় ৩ শতাংশ মাত্র ভোটে জিতেছে ওরা। তাতেই এত লম্ফঝম্প কেন?‌ ক্ষমতায় এসেছ, কাজ কর। মমতা বলেন, ওরা বলছে বাংলা নাকি জয় করবে!‌ কিন্তু বাংলা দিল্লি জয় করে দেখিয়ে দেবে। চন্দ্রবাবু নাইডুর টিডিপি বুধবার রাতেই মোদির এনডিএ মন্ত্রিসভা থেকে বেরিয়ে এসেছে। তার জের টেনে মমতা মোদির উদ্দেশে বলেন, টিডিপি বেরিয়ে এল। আপনাদের সহযোগী পার্টনার। শুনতে পাচ্ছেন, ভারত কী বলছে?‌ উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ থেকে বিহারও ডুবছে। কর্ণাটক, ওডিশাতেও কিছু করতে পারবে না। তাই, বাংলার দিকে তাকিও না। মানুষ জবাব দিয়ে দেবে। ত্রিপুরার ভোট প্রসঙ্গে মমতা এদিনও বলেছেন, সিপিএম ওখানে ৪৬ শতাংশ ভোট পেয়েছে। তাহলে আত্মসমর্পণ করল কেন ওরা?‌ আর বিজেপি তো জলের মতো টাকা খরচ করেছে। পেশিশক্তি ব্যবহার করেছে। সব তথ্য আমাদের কাছে আছে। মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে সীমান্ত এলাকায় বিএসএফের হাত দিয়ে টাকা বিলোচ্ছে বিজেপি। ভাগাভাগির রাজনীতি করছে ওরা। মমতা বলেন, এই সাম্প্রদায়িক রাজনীতি বাংলার মানুষ চায় না। ভারতবর্ষেও এদের কোনও জায়গা নেই। হিন্দু, মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখ— সব সম্প্রদায়ের মানুষকে নিয়ে আমরা চলতে চাই। বিজেপি নেতা–‌মন্ত্রীদের উদ্দেশে মমতা আরও বলেছেন, ওদের মুখের ভাষা শুনে লজ্জা লাগে। এইসব কুকথা বলে দলের কর্মীদের কাছে হাততালি পাওয়া যায়। কিন্তু বাংলার মানুষ তা সহ্য করবে না। ভাষা প্রয়োগে রাজনৈতিক নেতাদের চিন্তা করে কথা বলা উচিত। আর কেনই বা ওদের জ্ঞান শুনব। আমাদের দুর্বল ভাববেন না। ‌২০১৯ বিজেপি ফিনিশ— এই স্লোগানে রাজ্য জুড়ে দলীয় কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করেছেন এদিন মমতা ব্যানার্জি। ‌

মেয়ো রোডে মমতা। বৃহস্পতিবার। ছবি: তপন মুখার্জি

জনপ্রিয়

Back To Top