শান্তনু সিংহরায়: এয়ারপোর্ট থানা ভেঙে ২টি থানা আগেই হয়েছে। নতুন থানা হিসেবে কাজ শুরু করেছে নারায়ণপুর। এবার ভাঙছে বাগুইআটি থানা। কেষ্টপুরে নতুন থানা হবে বলে চূড়ান্ত হয়েছে। এছাড়া নিউ টাউন এলাকায় ৩টি থানা করার জন্য রাজ্য সরকারের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বিধাননগর পুলিস কমিশনারেটের তরফে। নাগরিকদের আরও ভাল পরিষেবা দিতে বড় থানা এলাকাগুলি ভেঙে একাধিক থানা তৈরি করার এই পরিকল্পনা বলে জানিয়েছেন পুলিস কর্তারা।
বিশাল এলাকা নিয়ে বাগুইআটি থানা। কমিশনারেট এলাকায় সব থানা এলাকা নিয়ে প্রতিদিন যত অভিযোগ দায়ের হয়, তার অধিকাংশই বাগুইআটিতে। বিধাননগর পুরনিগমের ১৮টি ওয়ার্ড পড়েছে এই থানা এলাকায়। স্কুল রয়েছে ৩৬টি, কলেজ ৩টি। সরকারি, বেসরকারি মিলিয়ে ১৬টি হাসপাতাল ও নার্সিংহোম রয়েছে বাগুইআটিতে। তাই বাগুইআটি থানা ভেঙে ২টি থানা করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল আগেই। কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি। সম্প্রতি বাগুইআটিতে ২টি থানা করার জন্য এলাকা চূড়ান্ত করেছে বিধাননগর পুলিস কমিশনারেট। দু’‌টি থানা হবে। একটি বাগুইআটি এবং অন্যটি কৃষ্ণপুর। কেষ্টপুর ও জ্যাংড়া এলাকা নিয়ে তৈরি হতে চলেছে কৃষ্ণপুর থানা। বাকি এলাকা থাকবে বাগুইআটি থানার মধ্যে। দু’‌টি থানা এলাকার মানচিত্র তৈরি করে অনুমোদনের জন্য পাঠানো হচ্ছে রাজ্য সরকারের কাছে। কমিশনারেটের কর্তারা বলছেন, দু’‌টি থানা হলে অপরাধ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসবে।
নিউ টাউন থানা আরও বড় এলাকা নিয়ে। বিধাননগর পুরনিগমের ৮টি ওয়ার্ড, পাথরঘাটা ও জ্যাংড়া হাতিয়ারা গ্রাম পঞ্চায়েত এবং এনকেডিএ এলাকা পড়েছে এই থানার মধ্যে। নিউ টাউনের জনসংখ্যা বাড়ছে। রয়েছে লাগোয়া গ্রামীণ এলাকা। এত বড় এলাকায় হিমশিম খেতে হয় একটি থানার পুলিসকে।

জনপ্রিয়

Back To Top