অভিজিৎ বসাক
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে স্পর্শহীন অফিসের পথে হাঁটছেন নবদিগন্ত শিল্পনগরী কর্তৃপক্ষ (‌এনডিআইটিএ)। অ্যাপের মাধ্যমে সরকারি ফাইল চালাচালি শুরু হচ্ছে সেখানে। এদিকে হিডকো পুনর্সবুজায়নে নিউ টাউনের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পড়ুয়াদের যুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে। এই কাজে তারা ন্যাশনাল ইনফরমেটিক্স সেন্টার (‌এনআইসি)–এর তৈরি একটি অ্যাপ ব্যবহার করতে চলেছে। ‌যার সাহায্যে এক অফিস থেকে অন্য অফিসে ফাইল পাঠানো যাবে দ্রুত এবং কোনওরকম সংস্পর্শ ছাড়াই। ফলে সংক্রমণের আশঙ্কা অনেকটাই কমে যাবে। এনডিআইটিএ অফিস থেকে বিধাননগরের নগরায়ন বা নবান্নের অর্থ দপ্তর, সরকারি ফাইল পাঠানো বা আনা, নিমেষে হয়ে যাবে । এ ব্যাপারে এনডিআইটিএ–র কর্মীদের জন্য কর্মশালার আয়োজন করা হয়। লকডাউনের সময় নিউ টাউন কলকাতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (এনকেডিএ)‌‌ স্পর্শহীন উপায়ে কাজ শুরু করে দেয়। এর ফলে শুধু করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা কমবে তা–ই নয়, ফাইল দেওয়া–নেওয়ার ক্ষেত্রে সময়ও অনেকটা বাঁচবে। আরও দ্রুত কাজ সারা যাবে।
নিউ টাউনে অনেকগুলি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। করোনা সংক্রমণ ঠেকানো, ডেঙ্গি প্রতিরোধ, পুনর্সবুজায়নের মতো বিষয়ে তাদের আরও সক্রিয় ভূমিকা চাইছে হিডকো। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন হিডকো কর্তারা। জমা জল থেকে মশা জন্মানোর বিষয়টি তাঁদের মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে। এবং তাঁরা যেন জল জমতে না দেন, সে ব্যাপারে উদ্যোগ নিতে অনুরোধ করা হয়েছে। সিদ্ধান্ত হয়েছে, নিউ টাউনে ৫০ হাজার গাপ্পি মাছ ছাড়া হবে। ওই মাছ মশার লার্ভা খেয়ে ফেলে।
সামাজিক কাজে আরও বেশি করে পড়ুয়াদের যুক্ত করতে চাইছে হিডকো। আমফানে নিউ টাউনের অনেক গাছের ক্ষতি হয়েছে। পুনর্সবুজায়নের কাজ শুরু হয়েছে সেখানে। বেশ কিছু সাধারণ নিয়ম মেনে চললে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো যেতে পারে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। মাস্কের ব্যবহার, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা, সাবান দিয়ে নিয়মিত হাত ধোয়া। এ ব্যাপারে মানুষকে আরও সতর্ক করতে নিউ টাউনের পড়ুয়াদের আরও বেশি করে উদ্যোগী হতে অনুরোধ করেছে হিডকো। বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্মত হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে জোরকদমে কাজে নামতে চলেছেন তাঁরা।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top