আজকালের প্রতিবেদন
একাদশের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে ১ আগস্ট থেকে। ভর্তি হতে স্কুলে পড়ুয়াদের আসতে হবে না। অভিভাবকরাই ভর্তি করাবেন। বুধবার জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি। স্নাতকের প্রথমবর্ষে গত কয়েক বছর ধরেই কলেজভিত্তিক অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া চালু রয়েছে। ভর্তি হতে কলেজে আসতে হয় না ছাত্রছাত্রীদের। এবারও সেভাবেই ভর্তি নেওয়া হবে। এ ব্যাপারে উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পরই নির্দেশিকা জারি করবে উচ্চশিক্ষা দপ্তর বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী। আগামী ২২ ও ২৩ জুলাই মাধ্যমিকের মার্কশিট দেওয়া হবে। এই মার্কশিট নিতেও স্কুলে পড়ুয়া নয় অভিভাবকরা আসবেন। বুধবার মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের সঙ্গে এ নিয়ে পর্ষদের পক্ষ থেকে একটি গাইডলাইন প্রকাশ করা হয়েছে। 
একাদশের ভর্তি নিয়ে এদিন শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‌যে ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের স্কুলেই একাদশে পড়তে চায় তাদের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে ১ আগস্ট থেকে। চলবে ১০ আগস্ট পর্যন্ত। নিজেদের স্কুলে পড়তে চায় এমন পড়ুয়ার সংখ্যাই বেশি। ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ। আর যারা অন্য স্কুলে একাদশে পড়তে চায় তাদের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে ১১ আগস্ট থেকে। চলবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত। অভিভাবকরা ভর্তি করাবেন। ছাত্রছাত্রীদের স্কুলে আসতে হবে না।’‌ করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাতে এই ভর্তি প্রক্রিয়া চলে সে ব্যাপারে এদিন জোর দেন শিক্ষামন্ত্রী। বলেন, ‘‌জেলা প্রশাসন এবং ডিআইদের বলব বিষয়টির ওপর নজর রাখতে।’‌ তার আগে মাধ্যমিকের মার্কশিট বিলি নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে ভিড় এড়াতে ‌ছাত্র সংখ্যা অনুযায়ী স্কুলগুলি দু দফায় এই মার্কশিট বিলি করবে। কোনও অবস্থাতেই যেন স্বাস্থ্যবিধি ভাঙা না হয়।’‌ 
 এদিন মার্কশিট বিলি নিয়ে মধ্য শিক্ষা পর্ষদের জারি করা নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ২২ জুলাই রাজ্য জুড়ে বিভিন্ন ক্যাম্প অফিসের মাধ্যমে স্কুলগুলিকে মার্কশিট দেওয়া হবে। স্কুল ২২ এবং ২৩ জুলাই তা পরীক্ষার্থীদের দেবে। পরীক্ষার্থীদের হয়ে এই মার্কশিট নিতে স্কুলে আসবেন অভিভাবকরা। নির্দিষ্ট পড়ুয়ার সঙ্গে তাঁর কী সম্পর্ক তার প্রমাণ আনতে হবে অভিভাবককে। এছাড়াও সংশ্লিষ্ট পড়ুয়ার অ্যাডমিট কার্ড ও রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট আনতে হবে। একসঙ্গে অনেক লোকের জমায়েত যাতে না হয় তার জন্য স্কুলগুলিকে রোল নম্বর অনুযায়ী পড়ুয়াদের কয়েকটি ভাগে ভাগ করে মার্কশিট বিলি করতে বলা হয়েছে। যেভাবে অভিভাবকদের হাতে মিড–‌ডে মিল তুলে দেওয়া হয় সেভাবেই মার্কশিট দেওয়া হবে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্যবিধি মানা, মাস্ক এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার বাধ্যতামূলক। পর্ষদ সভাপতি কল্যাণময় গাঙ্গুলি বলেন, ‘‌সাতদিন পর মার্কশিট দেওয়া হবে। 

এর মধ্যে পুরো স্কুল জীবাণুমুক্ত করতে বলা হচ্ছে। সেইজন্যই এই সময়টা দেওয়া হচ্ছে।’‌ এ ব্যাপারে কোনও সমস্যা হলে যোগাযোগের জন্য পর্ষদের দেওয়া হেল্প লাইনগুলি হল:‌ ০৩৩ ২৩২১ ৩২১৬, ০৩৩ ২৩২১ ৩৮৪৪, ০৩৪২ ২৬৬২৩৭৭, ০৩৪২ ২৫৬৯২১৪, ০৩২২২ ২৭৫৫২৪, ৬২৯৭৪৪০৮২৬, ০৩৩ ২৩৫৮০৬১১। 
ইতিমধ্যেই আইএসসি এবং সিবিএসই দ্বাদশের ফল প্রকাশিত হয়েছে। ১৭ জুলাই প্রকাশিত হবে উচ্চমাধ্যমিকের ফল। ৩১ আগস্ট রাজ্য জুড়ে বিভিন্ন ক্যাম্প অফিসের মাধ্যমে মার্কশিট দেওয়া হবে। স্বভাবতই কলেজে ভর্তি কবে থেকে তা নিয়ে উৎসুক ছাত্রছাত্রীরা। যা নিয়ে এদিন শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘গত কয়েকবছর ধরেই স্নাতকের প্রথমবর্ষে অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া চালু আছে। এবছরও সেভাবেই ভর্তি নেওয়া হবে। ভর্তি হতে সশরীরে কলেজে আসতে হবে না। এ ব্যাপারে আগস্ট মাসেই নির্দেশিকা জারি করা হবে।’‌ প্রসঙ্গত, রাজ্যে স্নাতকস্তরে কলেজ ভিত্তিক অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়া চালু রয়েছে। আবেদন করা থেকে শুরু করে ব্যাঙ্কে টাকা জমা দেওয়া— পুরো প্রক্রিয়াটাই হয় অনলাইনে। একেবারে ক্লাস শুরুর প্রথমদিন কলেজে আসে ছাত্রছাত্রীরা। সেদিনই তাদের নথি পরীক্ষা করা হয়। এবছরও তাই হবে।‌

জনপ্রিয়

Back To Top