আজকালের প্রতিবেদন: ‌চাহিদা বাড়লেও পুজোয় বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক থাকবে। গত বছরের তুলনায় এ বছর পুজোয় বিদ্যুতের চাহিদা ৭ শতাংশ বাড়বে। তবে এই চাহিদা পূরণে কোনও সমস্যা হবে না। মঙ্গলবার বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় একথা জানিয়েছেন। 
উৎসবের দিনগুলিতে বিদ্যুৎ ঘাটতির কারণে মানুষের আনন্দ যাতে মাটি না হয়, তা সুনিশ্চিত করতে এদিন বিদ্যুৎ ভবনে বিভিন্ন দপ্তরের আধিকারিকদের নিয়ে প্রস্তুতি বৈঠক করেন বিদ্যুৎমন্ত্রী। বৈঠক শেষে তিনি জানান, পুজোর সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ অব্যাহত রাখতে বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। এখন পঞ্চমী থেকেই বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যায়। মহালয়া থেকে শুরু হয়ে যায় পুজোর উদ্বোধন। সেই সঙ্গে কলকাতা এবং শহরতলিতে পুরোদমে শুরু হয় প্রতিমা দর্শন। ফলে বিদ্যুতের চাহিদাও বেড়ে যায়। তবে চাহিদা বাড়লেও বিদ্যুতের জোগানে কোনও সমস্যা হবে না। এবার পঞ্চমীর দিন রাজ্যে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে হবে ৯ হাজার ৫২০ মেগাওয়াট। এই চাহিদা মেটাতে ডিসিএল ৭ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট, সিইএসসি ২ হাজার ১০০ মেগাওয়াট এবং আইসিসিএল ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেবে। বিদ্যুৎ দপ্তর এর জন্য সবরকম প্রস্তুতি নিয়েছে। কয়লা সরবরাহকারী সংস্থাগুলির প্রতিনিধিরাও এদিনের বৈঠকে ছিলেন। তাঁরা জানিয়েছেন, পুজোর দিনগুলোয় কয়লার কোনও সমস্যা হবে না। মন্ত্রী জানান, কয়লার ঘাটতি রয়েছে। বিশেষ করে বর্ষার সময় খাদানগুলিতে জল ঢুকে সমস্যা হয়। তবে পুজোয় এই সমস্যা যাতে না হয়, সে বিষয়ে বৈঠকে তাঁকে আশ্বস্ত করেছেন কয়লা সরবরাহকারী কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির প্রতিনিধিরা।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top