আজকালের প্রতিবেদন: সরকারকে ব্যবহার করে ব্যাঙ্কের টাকা লুঠ হচ্ছে। সেই টাকা নিয়ে নিরাপদে বিদেশ চলে যাচ্ছে কয়েকজন প্রভাবশালী পুঁজিপতি। এটা ‘‌সফিস্টিকেটেড’‌ লুঠ। মোদি সরকারের মদতেই দেশের লোকের টাকা লুঠছে পুঁজিপুতিরা। সেই সঙ্গে ধর্মীয় মেরুকরণের মাধ্যমে দেশের মানচিত্র বদলে দিতে চাইছে ‌আরএসএসের রাজনৈতিক শাখা বিজেপি। মঙ্গলবার ধর্মতলার সভায় এ কথা জানান সিপিএমের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।
তিনি এদিন বলেন, পুঁজিপতিদের সুবিধা করে দিতে বিজেপি সরকার প্রায় ৩ লক্ষ কোটি টাকা ঋণ মকুব করেছে। অথচ কৃষকদের ৮০ হাজার কোটি টাকা ঋণ মকুব করা হয়নি। বহু কৃষক এর জেরে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে কৃষকদের পরিস্থিতি ক্রমশ শোচনীয় হয়ে পড়ছে। অনেকেই অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। যাদের এই বিপুল সংখ্যক ঋণ মকুব করা হয়েছে, তাদের নাম আজও প্রকাশ করতে পারেনি সরকার। সভায় দাঁড়িয়ে তিনি প্রশ্ন করেন, দেশের মানুষের টাকায় বিদেশ সফরে কাদের সঙ্গে নিয়ে যান প্রধানমন্ত্রী?‌ তাঁর সঙ্গে একই বিমানে যাঁরা যান তাঁদের নামও কোনও দিন প্রকাশ করা হয় না কেন?‌ বিদেশে পুঁজিপতিদের সুবিধা পাইয়ে দিতে কোন কোন সংস্থার সঙ্গে কী চুক্তি হয়, তাও গোপন রাখা হয় কেন?‌ তাঁর দাবি, আগে প্রধানমন্ত্রীর মধ্যস্থতায় এ ধরনের চুক্তি হত না। কিন্তু এখন সরকারই সরাসরি বিদেশি সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করে ঘনিষ্ঠ পুঁজিপতিদের সুবিধা পাইয়ে দিচ্ছে। উদাহরণ হিসেবে তিনি রাফায়েল চুক্তির কথা উল্লেখ করেন। অবৈধ মুনাফা তৈরির এই পদ্ধতিকে ‘‌ক্রোনি ক্যাপিটালিজম’‌ বলে উল্লেখ করেছেন সীতারাম ইয়েচুরি। তাঁর দাবি, এইসব লুঠের টাকার অর্ধেক দেশে ফেরাতে পারলেই দেশের অর্থনীতি নতুন দিশা পেতে পারে।

জনপ্রিয়

Back To Top