আজকালের প্রতিবেদন: সারদা–কাণ্ডে রাজ্য সরকার গঠিত স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম (‌সিট)‌–‌এর শীর্ষে ছিলেন না তৎকালীন বিধাননগর কমিশনারেটের কমিশনার রাজীব কুমার। এই মর্মে আদালতে তিনি হলফনামা জমা দিতে চলেছেন। সিট গঠিত হয়েছিল তৎকালীন ডিজি নপরাজিত মুখার্জিকে মাথায় রেখে। এদিকে, শিলঙে কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে সিবিআই। জানা গেছে, ইতিমধ্যেই ডিএসপি তথাগত বর্ধনের নেতৃত্বে ১৯ জনের একটি দল গঠিত হয়েছে। তদন্তের গতিপ্রকৃতি বিষয়ে নির্দিষ্ট প্রশ্নমালাও তৈরি হয়েছে। ওই তদন্ত চলাকালীন যে সমস্ত অফিসার তদন্তে জড়িত ছিলেন, ইতিমধ্যেই তাঁদের কয়েকজনকে জেরা করেছে সিবিআই। নতুন করে তথ্য জানার জন্য আরও কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলবে। সিবিআইয়ের পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা পঙ্কজ শ্রীবাস্তব দিল্লি থেকে কলকাতায় ফিরেছেন। তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর সারদা–কাণ্ডের তদন্তের গতিপ্রকৃতি কোন পর্যায়ে সে–বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য জানিয়ে এসেছেন সিবিআইয়ের সদর দপ্তরে। রাজীব কুমার ৮ ফেব্রুয়ারি শিলং যেতে চেয়েছেন বলে নতুন অধিকর্তা ঋষিকুমার শুক্লাকে চিঠিতে জানিয়েছিলেন। জানা গেছে, তথ্য জানার জন্য সিবিআই নিজস্ব প্রস্তুতি শেষ করার পরেই রাজীব কুমারের সঙ্গে কথা বলবে। তাঁকে শিলং আসার তারিখ জানিয়ে দেওয়া হবে। যদি সে–সময় তিনি কোনও বিশেষ কারণে ব্যস্ত থাকেন, তাহলে পরবর্তী তারিখ নির্দিষ্ট করা হবে। শিলঙে সিবিআই দপ্তরে সে–সময় দিল্লির কয়েকজন সিবিআই কর্তাও থাকতে পারেন বলে জানা গেছে। এদিকে, রোজভ্যালি–কাণ্ডের তদন্তে কলকাতা পুলিসের দুই আইপিএস মুরলীধর শর্মা ও কল্যাণ মুখার্জিকে চিঠি দিল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। চিঠিতে বলা হয়েছে, রোজভ্যালি সংক্রান্ত যদি কোনও তথ্য তাঁদের কাছে থাকে, তা জানাতে। এজন্য ইডি দপ্তরে আসার দরকার নেই। তথ্য সংবলিত কাগজপত্র কাউকে দিয়ে পাঠিয়ে দিলেই হবে। এ বিষয়ে গতবছর একটি চিঠি দেওয়া হয়েছিল। চলতি বছরে একই বিষয়ে আবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। এদিকে, সিবিআইয়ের সঙ্গে সারদা তদন্ত প্রসঙ্গ নিয়ে রাজীব কুমার সে–সময় তদন্ত দলে যাঁরা ছিলেন, তাঁদের সঙ্গে কথা বলেছেন। গোটা বিষয়টি কীভাবে তদন্ত করা হয়েছিল, তাতে কী কী পাওয়া গিয়েছিল এবং তিনি দায়িত্বে থাকাকালীন তদন্তের সর্বশেষ পরিস্থিতি কী ছিল, সবই তিনি জানাবেন। সিবিআই এ যাবৎকাল 

জনপ্রিয়

Back To Top