আজকালের প্রতিবেদন: গত দু’‌দিন ধরে ছাত্রীদের বাইরে বেরোতে না দিয়ে হস্টেলের ভেতর আটকে রাখার অভিযোগ উঠল প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। প্রেসিডেন্সির ছাত্রীদের হস্টেলটি বিধাননগরের সেক্টর ১–এর বি এফ ব্লকে। হস্টেলে ১৮৫ জন আবাসিক রয়েছেন। তাঁদের একাংশের অভিযোগ, দোলের দিন, বৃহস্পতিবার এবং হোলির দিন, শুক্রবার তাঁদের হস্টেলের ভেতর আটকে রাখা হয়। গেট বন্ধ ছিল। বাইরে বেরোতে দেওয়া হয়নি। দু’‌দিন যে হস্টেলের গেট বন্ধ থাকবে, তা আগে জানানো হয়নি। ওষুধ কিনতে বা অন্য কোনও ব্যক্তিগত কাজে বেরোতে চাইলে চিঠি লিখতে হয়েছে। কেউ বাড়ি যেতে চাইলে ট্রেন বা বাসের টিকিট দেখাতে হয়েছে, নয়তো বাড়ির লোককে ফোন করে হস্টেলে বলতে হয়েছে। শুক্রবার অবশ্য বিকেল ৪টে থেকে সন্ধে ৬টা পর্যন্ত বাইরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এর প্রতিবাদে সোমবার ডিন অফ স্টুডেন্টস অরুণকুমার মাইতির কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হবে। 
আবাসিকদের পক্ষে ভূমিসুতা ব্যানার্জি বলেন, ‘এভাবে গেট বন্ধ করে আটকে রাখার ঘটনা আগে ঘটেনি। কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, এটা নাকি আমাদের নিরাপত্তার জন্য। কিন্তু আমরা সবাই প্রাপ্তবয়স্ক। বাড়ি থেকে দূরে হস্টেলে নিজেদের দায়িত্বেই থাকি। তা ছাড়া বছরের বাকি দিনগুলিতেও তো আমাদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে। এভাবে আটকে রেখে নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা আদৌ কি যুক্তিযুক্ত?‌ ছাত্রদের ক্ষেত্রে তো এরকম কিছু করা হয়নি। ছাত্রীদের সঙ্গে নিরাপত্তার নামে বৈষম্যমূলক আচরণ কাম্য নয়।’‌ অরুণবাবু জানিয়েছেন, ‘‌এটাকে অতিরিক্ত সাবধানি পদক্ষেপ বলে মনে হতেই পারে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা দায়িত্ব রয়েছে। কোনও অঘটন ঘটলে তার দায় আমাদের ওপর আসবে। তা ছাড়া ওষুধ কিনতে বা ডাক্তার দেখাতে গেলে তো চিঠি লিখে যাওয়ার অনুমতি ছিল।’‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top