আজকালের প্রতিবেদন

ভয় ভীতি কাটিয়ে ধীরে ধীরে অনেকেই এগিয়ে আসছেন প্লাজমা দানে। মূমূর্ষ করোনা রোগীদের সুস্থ করতে আরও বেশি করে প্লাজমার প্রয়োজন। সেই কারণে অধিক সংখ্যক করোনাজয়ীর আরও উৎসাহ নিয়ে প্লাজমা দান করার জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। প্লাজমা ব্যাঙ্ক তৈরির দিকেও আস্তে আস্তে এগোচ্ছে বাংলা। মে মাসের ২৮ তারিখ থেকে প্লাজমা সংগ্রহ শুরু করে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ইমিউনোহেমাটোলজি অ্যান্ড ব্লাড ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগ। এই বিভাগেই তৈরি হবে রাজ্যের প্রথম প্লাজমা ব্যাঙ্ক। সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত ১৭ জন করোনাজয়ী প্লাজমা দান করেছেন। এর মধ্যে শুধু জুলাইতেই ১০ জন দিয়েছেন। শুক্রবার কলকাতা মেডিক্যালে গিয়ে প্লাজমা দান করেছেন বিশিষ্ট চিত্র সাংবাদিক পার্থ পাল।
হাবরার মনামী বিশ্বাস ছাড়াও ডাঃ সায়ন্তন চক্রবর্তী, ডাঃ অরিজিৎ ভট্টাচার্য সহ বেশ কয়েকজন দিয়েছেন। প্লাজমা দাতাদের মধ্যে বেশিরভাগ স্বাস্থ্য কর্মী রয়েছেন। করোনাকে জয় করেছেন অন্য মানুষদেরও এগিয়ে আসার জন্য আবেদন করেছেন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডাঃ প্রসূণ ভট্টাচার্য। তিনি বলেন,‘‌মানুষকে আরও এগিয়ে আসতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ঘোষণা করেছেন এখানে প্লাজমা ব্যাঙ্ক করা হবে। প্রাথমিকভাবে আমরা কাজ শুরু করেছি। তবে আরও আমাদের আরও প্লাজমার প্রয়োজন।’
কোভিড রোগীদের চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপির ট্রায়ালের জন্য কলকাতা মেডিক্যালে শুরু হয় প্লাজমা সংগ্রহ। এবার পরবর্তী পদক্ষেপ প্লাজমা ব্যাঙ্ক তৈরি। প্রসূণ বাবু বলেন, ‘‌সকলে রাজি হলে সবারই যে প্লাজমা নেওয়ার জন্য উপযুক্ত এমনটা নয়। কেউ কেউ বাতিল হয়ে যাচ্ছেন। আবার অনেকে সামাজিক বাধার কারণে এগিয়ে আসছেন না। তাই সব হাসপাতালেই কাউন্সেলিং প্রক্রিয়া আরও বাড়ানো দরকার।’‌   

জনপ্রিয়

Back To Top