আজকালের প্রতিবেদন‌‌‌‌‌‌‌‌: কলকাতায় নামল ইলেকট্রিক বাস। পাশাপাশি মহিলাদের আরও স্বাবলম্বী করতে ‘‌পিঙ্ক ক্যাব’‌ পরিষেবার উদ্বোধন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বুধবার নবান্ন থেকে এর শুভসূচনা করা হয়। আপাতত কলকাতার মধ্যে ২০টি ইলেকট্রিক বাস চলবে। আপাতত ভাড়া একই থাকছে। এয়ারপোর্ট থেকে জোকা, শ্যামবাজার থেকে নবান্ন এবং টালিগঞ্জ থেকে বিধাননগর পর্যন্ত। মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, ‘‌কলকাতায় নতুন উপহার ইলেকট্রিক বাস। এখন ২০টা নেমেছে। পরে আরও ৬০টি বাস চলবে। পরিবহণ দপ্তর খুব ভাল কাজ করছে। মেয়েরা আমাদের সহযোদ্ধা ও সহযাত্রী। এই তো মেয়েরা গাড়ি চালালেন, কী সুন্দর!‌ এই গাড়িগুলির মালিক ওঁরাই। গাড়ি কেনার জন্য গতিধারা প্রকল্পে রাজ্য সরকার দেড় লক্ষ টাকা ভর্তুকি দেবে। পঞ্চান্নটা চার্জিং সেন্টার করা হয়েছে ইলেকট্রিক বাসের জন্য। বেসরকারি ইলেকট্রিক বাস যাঁরা চালাতে চান, তাঁরাও চার্জিংয়ের সুযোগ পাবেন। গত সাড়ে ৭ বছরে গতিধারা প্রকল্পে ৩৬ হাজার গাড়ি নেমেছে। ১০ হাজার ওলা–উবের চলছে। মোট ৫০ হাজার গাড়ি চলছে। নতুন বাস ২১০০টি বাস চলছে। ৮০টি ইলেকট্রিক বাস সরবরাহ করছে টাটা মোটরস। আসানসোলে প্রাকৃতিক গ্যাসের বাস চলবে।’‌ 
মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও বলেন, ‘‌আমরা সস্তায় বাসগুলি কিনেছি। বন্‌ধ হলেও এখানে বাসের চাকা চালু থাকে। এইট বি বাসস্ট্যান্ডকে আমরা সুন্দর করে সাজিয়েছি। এর জন্য ৪ কোটি ৫৪ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে।’‌ মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘‌এইট বি বাসস্ট্যান্ডের অনুষ্ঠানে ছিলেন পূর্তমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস এবং সাংসদ মণীশ গুপ্ত।’ নবান্নে ছিলেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, পর্যটন দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের মন্ত্রী জাভেদ খান, বিধায়ক স্বর্ণকমল সাহা, মুখ্য সচিব মলয় দে, স্বরাষ্ট্র সচিব অত্রি ভট্টাচার্য, পরিবহণ সচিব বিপি গোপালিকা, ডিজি বীরেন্দ্র, কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা এবং হাওড়ার পুলিশ কমিশনার বিশাল গর্গ। সবুজ পতাকা নাড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী এই বাস ও ক্যাবযাত্রার উদ্বোধন করেন। পরিবহণমন্ত্রী বলেন, ‘‌মুখ্যমন্ত্রী বাংলাকে নতুন করে সাজিয়েছেন। বেকারদের কর্মসংস্থান হয়েছে। তাঁর অনুপ্রেরণায় হয়েছে নানা ধরনের প্রকল্প।’‌
নতুন এই ইলেকট্রিক বাস লম্বায় ৯ মিটার। দাম ৭৪.‌৯০ লক্ষ টাকা। ১২ মিটার লম্বা বাসের দাম ৮৮ লক্ষ টাকা। পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গ পরিবহণ নিগম ২০টি পরিবেশ বান্ধব সিএনজি বাস কিনেছে। একেকটি বাসের দাম ৩৩ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা। এই বাসগুলি ই–টেন্ডারের মাধ্যমে অশোক লেল্যান্ডের কাছ থেকে কেনা হয়েছে। পরিবহণ দপ্তর জানিয়েছে, ২০১৮–’‌১৯ আর্থিক বছরে গতিধারা প্রকল্পের মাধ্যমে ১২ হাজার ১৭৭ জন উপকৃত হয়েছেন। অনুদান দেওয়া হয়েছে ৯০ কোটি টাকা। ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top