‌সাগরিকা দত্তচৌধুরি: কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পর এবার এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তৈরি হচ্ছে পৃথক করোনা ওয়ার্ড। কোভিড রোগীদের চিকিৎসায় ১১০টি শয্যা এবং ৪ শয্যার আইসিইউ–‌এর ব্যবস্থা করা হয়েছে।‌ আগামী সাত দিনের মধ্যে চালু হবে। বুধবার হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির (‌আরকেএস)‌ বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, মহিলা–‌পুরুষ মিলিয়ে এনআরএসের চেস্ট বিল্ডিংয়ে ৮০টি, ডার্মাটোলজি বিভাগে ১৮টি এবং অর্থোপেডিক বিভাগের নীচ তলার মহিলা ওয়ার্ডের ১২টি শয্যা ব্যবহৃত হবে কোভিড পজিটিভ রোগীদের চিকিৎসার জন্য। আশঙ্কাজনক রোগীদের জন্য চেস্ট বিল্ডিংয়ে যে চারটি রেসপিরেটরি ক্রিটিক্যাল ইউনিট (‌আরসিইউ)‌ আছে, তা ব্যবহৃত হবে। কোভিডের পাশাপাশি নন কোভিড রোগী পরিষেবাও চালু থাকবে। এদিনের বৈঠকে ছিলেন আরকেএসের চেয়ারম্যান, সাংসদ ডাঃ শান্তনু সেন, এনআরএসের অধ্যক্ষ ডাঃ শৈবাল মুখার্জি, সুপার ডাঃ করবী বড়াল–‌সহ বিভিন্ন বিভাগের প্রধান।
অন্যদিকে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান, মন্ত্রী ডাঃ নির্মল মাজির উপস্থিতিতে জরুরি সিদ্ধান্ত হয়। কোভিড ছাড়াও অন্য আশঙ্কাজনক রোগীরা আপৎকালীন পরিষেবা পাবেন। কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ মঞ্জুশ্রী রায় এদিন একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছেন, একটি কুইক রেসপন্স টিম (‌কিউআরটি)‌ গঠন করা হয়েছে। যারা জেনারেল ইমার্জেন্সিতে সাত দিন ২৪ ঘণ্টাই পরিষেবা দেবেন। জেনারেল মেডিসিন স্পেশ্যালিস্ট একজন, সিনিয়র রেসিডেন্ট একজন, মেডিক্যাল অফিসার একজন, হাউস স্টাফ, ইন্টার্ন ও নার্সিং স্টাফ দু’‌জন করে থাকবেন। কিউআরটি সমন্বয়কারী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে একজন সহকারী সুপারকে। এছাড়াও অপর একজন সহকারী বা ডেপুটি সুপার নজরদারি করবেন।  ইমার্জেন্সিতে যে–‌কোনও আশঙ্কাজনক রোগী এলে সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষা করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেবে কিউআরটি টিম। কোনও রোগী আসা মাত্রই মারা গেলে ভাল করে পরীক্ষা করে মৃত্যু নিশ্চিত হয়ে প্রোটোকল মেনে পরবর্তী কাজ করতে হবে। আশঙ্কাজনক নয় এমন রোগীদের ভর্তি করে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডে দ্রুত পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

জনপ্রিয়

Back To Top