আজকালের প্রতিবেদন:  দু’‌বছরের অধ্যবসায়ের শেষে ব্ল্যাক বেল্ট পেলেন এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৬ জন। তৃতীয় বর্ষের দুই ডাক্তারি পড়ুয়া, ৩ জন জুনিয়র চিকিৎসক এবং একজন এক্স–রে ও আলট্রাসাউন্ডের ফ্যাকাল্টি। ২০১৭ সালের মার্চে এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডেপুটি সুপার তাইকোন্ডো মাস্টার ও ‘‌সেকেন্ড ডান’ ব্ল্যাকবেল্ট প্রাপ্ত ডাঃ দ্বৈপায়ন বিশ্বাসের উদ্যোগে চালু হয় কোরিয়ান মার্শাল আর্টের প্রশিক্ষণ। সকলেই ‘‌ফার্স্ট ডান’ ব্ল্যাক বেল্ট পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন ডেপুটি সুপার। তৌসিফ মির্জা, প্রীতম রহমান, আকাশ মণ্ডল, ইন্দ্রায়ুধ ব্যানার্জি, কৌশিকী রামন এবং ঋতুপর্ণা মুখার্জি এ বছর ১১ মার্চ পরীক্ষা দেন। পরীক্ষক ছিলেন গ্র‌্যান্ডমাস্টার ও হল অফ ফেম প্রদীপ্তকুমার রায়। সহযোগিতা করেছেন মাস্টার রুমা রায়চৌধুরি এবং ডেপুটি সুপার ডাঃ দ্বৈপায়ন বিশ্বাস। ১৪ এপ্রিল ফল প্রকাশিত হয়। দেশের মধ্যে এনআরএস–ই প্রথম হাসপাতাল, যেখানে চিকিৎসকদের মার্শাল আর্টের প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু হয়। ওই ৬ জনের ‌‘‌ফার্স্ট ডান’ ব্ল্যাক বেল্ট পাওয়া দেশের মধ্যে কোনও মেডিক্যাল কলেজ থেকে প্রথম বলে জানান গ্র‌্যান্ডমাস্টার প্রদীপ্তকুমার রায়। তিনি জানান, তাঁরা কুক্কিওন থেকে সরাসরি এই স্বীকৃতি পেয়েছেন। কুক্কিওন হল ওয়ার্ল্ড তাইকোন্ডো হেডকোয়ার্টার। তাইকোন্ডোর প্রশিক্ষণের ফলে শুধুমাত্র আত্মরক্ষা নয়, হাসপাতালে চিকিৎসকদের যেরকম স্ট্রেসের মধ্যে থাকতে হয়, তা কাটানো যায়, মানসিক জোর বাড়ে।‌

আত্মবিশ্বাসী ওঁরা। এনআরএসে পরীক্ষাপর্বের আগে।

জনপ্রিয়

Back To Top