আজকালের প্রতিবেদন‌- মোদি হঠাও, দেশ বাঁচাও। নাগরিকপঞ্জি বাতিল করতে হবে। ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের আন্দোলন চলছে, চলবে। সোমবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে ‘‌সময়ের ডাক, বাংলার প্রতিবাদ’‌ মঞ্চে এই আওয়াজ উঠল। বক্তব্য পেশ করলেন রাজ্যের কারিগরি শিক্ষা দপ্তরের মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু, বিশ্বনাথ চক্রবর্তী, অধ্যাপক অশোকেন্দু সেনগুপ্ত, অর্থনীতিবিদ দীপঙ্কর দে,  শিক্ষাবিদ অভীক মজুমদার, সাংবাদিক দেবাশিস ভট্টাচার্য, অধ্যাপক ভাস্কর গুপ্ত, অনন্যা চক্রবর্তী প্রমুখ। 
‌মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু বলেন, ‘‌নাগরিকপঞ্জি কিছুতেই মানা যায় না। আট বার নাগরিকত্ব আইন সংশোধিত হয়েছে।’‌ তাঁর প্রশ্ন, ‌হঠাৎ নাগরিকপঞ্জি নিয়ে কেন্দ্র কেন পদক্ষেপ করল। ‘‌গোটা দেশে ছাত্রছাত্রীরা প্রতিবাদমুখর। আরএসএসের মোহন ভাগবত সংবিধান বিরোধী কথাবার্তা বলছেন। কে নাগরিক, কে নাগরিক নয়, সেটা কি ওঁরা ঠিক করবেন?‌ এই রাজনৈতিক সঙ্কটময় সময়ে সবাইকে রুখে দাঁড়াতে হবে। ভারতের প্রাক্তন বিচারপতি এবং বিশিষ্ট আইনজীবীরা থাকবেন। এটা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে আলোচনা হোক।’‌ তাঁর প্রশ্ন, নাগরিকপঞ্জি তৈরি করছে যে সরকার, তারা ক্ষমতায় আছে বলে কি নাগরিকদের পরীক্ষা দিতে হবে?‌ তিনি বলেন, ‘‌আমরা পরীক্ষা দেব না। আমরা চাই ইউনাইটেড ইন্ডিয়া। আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলছে, চলবে। প্রথম থেকেই এই আন্দোলনে শামিল হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।’‌
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী বলেন, ভারতের কৃষ্টি সংস্কৃতি মোদি ও অমিত শাহ শেষ করে দিচ্ছেন। মোদি হঠাও, দেশ বাঁচাও। ইতিহাস এদের ক্ষমা করবে না। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
অশোকেন্দু সেনগুপ্ত বলেন, ‘‌বামপন্থীদের উদ্দেশে বলছি পোকা বাছতে যাবেন না। আমার পাড়ায় মশা নিয়ে কথাবার্তা হচ্ছিল। মশার উৎপাতের চেয়েও বেশি উৎপাত করছে মো–শা।’‌ 
অনন্যা চক্রবর্তী বলেন, ‘‌নাগরিকপঞ্জি অত্যন্ত বিপজ্জনক। দেশে চাকরি নেই। বড় বড় শিল্প কারখানা বেচে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। নাগরিকপঞ্জি নিয়ে কেন্দ্র মানুষের নজর ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে।’‌
অর্থনীতিবিদ দীপঙ্কর দে বলেন, ‘‌৬টি রাজ্য থেকে কেন্দ্রীয় সরকার কোল সেস নিয়েছে। নাগরিকপঞ্জি নিয়ে বাঙালির ওপর আঘাত আনছে কেন্দ্র।’‌
দেবাশিস ভট্টাচার্য বলেন, ‘‌নরেন্দ্র মোদির দেশ চালানোর ক্ষমতা নেই। রাজনীতিতে হঠকারিতা করলে তার ফল ভোগ করতে হয়।’‌শিক্ষাবিদ অভীক মজুমদার বলেন, ‘‌দানবিক শক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামতে হবে। আজ গণতন্ত্র বিপন্ন।’‌
অধ্যাপক ভাস্কর গুপ্ত বলেন, ‘‌স্বাধীনতার পরেও দেশকে এমন কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়নি। ধর্ম নিয়ে কারও পেট ভরে না। ‌’‌‌‌

‘সময়ের ডাক’–এর উদ্যোগে এনআরসি, ক্যা, এনপিআরের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তা মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু। মঞ্চে বঁাদিক থেকে দেবাশিস ভট্টাচার্য , অভীক মজুমদার, দীপঙ্কর দে, বিশ্বনাথ চক্রবর্তী, অশোকেন্দু সেনগুপ্ত ও অনন্যা চক্রবর্তী। প্রেস ক্লাবে। সোমবার। ছবি: বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top