আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ৩৮ বছরের ছেলে কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন। ঠিক ছিল মা নিজের একটি কিডনি দেবেন। সব ঠিক ছিল। ভেস্তে দিল কোভিড। দু’‌জনেই সংক্রামিত হয়ে গেলেন। কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত ছেলেকে যে ফিরে পাবে পরিবার, আশাই ছেড়েছিল। সংক্রমণ জয় তো করলেনই, এর পর সফলভাবে কিডনিও প্রতিস্থাপন হল। কলকাতার ঘটনা।
বাংলাদেশের সিরাজগঞ্জ থেকে কলকাতায় চিকিৎসার জন্য এসেছিলেন উত্তম কুমার ঘোষ। সঙ্গে ছিলেন মা, স্ত্রী, মেয়ে। সেই জানুয়ারির শেষে। কিডনি দেওয়ার কথা ছিল মা কল্পনাদেবীর। কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের দিল ঠিক হয়। তার মধ্যেই শুরু হয়ে যায় লকডাউন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক নির্দেশিকা দেয়, খুব জরুরি না হলে এই করোনা পরিস্থিতিতে অঙ্গ প্রতিস্থাপন করা যাবে না। 
নির্দেশিকা মেনে আবারও অস্ত্রোপচারের দিন নির্ধারিত হয়। মা ও ছেলের কোভিড পরীক্ষা হয়। রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ফের তাঁদের পাঠানো হয় সরকারি হাসপাতালে। পরিবারের সদস্যদের কপালে ভাঁজ। অন্য রোগ থাকলে কোভিড প্রাণঘাতী হতে পারে। বিশেষত কিডনির সমস্যা থাকলে আরও বিপদ বাড়ে। তাছাড়া উত্তম বাবুর মায়েরও বয়স ৬৫ বছর। এই বয়সেও ঝুঁকি বেশি। সমস্ত আশঙ্কা মিথ্যে প্রমাণ করে ১২ জুন সরকারি হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান তাঁরা। কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ শেষ হলে ৩ জুলাই অস্ত্রোপচার হয়। মা ছেলে দু’‌জনেই সুস্থ রয়েছেন এখন। বারবার ধন্যবাদ জানিয়েছেন এ রাজ্যের চিকিৎসকদের। আশার আলো দেখিয়েছেন দেশে অগণিত কোভিড আক্রান্তদের।

জনপ্রিয়

Back To Top