আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ গত শনিবার পার্কস্ট্রীট স্টেশনে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় সজল কাঞ্জিলালের মৃত্যুর পরই যেন নড়েচড়ে বসেছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ। আর এর ফলে নয়া নিয়ম আসতে চলেছে মেট্রোয় যাতায়াতের ক্ষেত্রে। গায়ের জোরে ট্রেনের দরজা খোলার চেষ্টা রুখতে এবার আরও কঠোর হচ্ছে মেট্রোর নিয়ম। এবার থেকে জোর করে মেট্রোর দরজা খুলতে গেলেই দিতে হবে আর্থিক জরিমানা। এই জরিমানা সর্বোচ্চ হাজার টাকা পর্যন্ত হবে এবং অনাদায়ে হতে পারে ৬ মাসের জেল। ইতিমধ্যে চলতি সপ্তাহে সোমবার পার্ক স্ট্রিট মেট্রো স্টেশনে এক যাত্রীকে ধরা হয়। ওই যাত্রী দরজা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরেও হাত দিয়ে দরজা ঠেলে ট্রেনে ওঠার চেষ্টা করছিলেন। কর্তব্যরত আরপিএফ কর্মী তঁাকে ধরেন এবং স্টেশনের সিসিটিভিতে গোটা ঘটনাটি দেখিয়ে ওই যাত্রীকে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। বুধবার এই জরিমানা প্রসঙ্গে মেট্রো রেলের প্রিন্সিপাল চিফ অপারেশনস ম্যানেজার সাত্যকী নাথ বলেন, ‘‌মেট্রো চত্বরে থুতু ফেলা–সহ ছোটখাট কোনও বিষয়ের জন্য সর্বনিম্ন ১০০ টাকা জরিমানা করার নিয়ম। আবার ট্রেনের দরজা আটকানো বা ট্রেন চলতে বাধা দেওয়ার মতো ঘটনায় আইনভঙ্গকারীকে রেলের আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ জরিমানা ১ হাজার টাকা পর্যন্ত করা বা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদন্ড দেওয়া যেতে পারে। বিষয়টা এমন নয় যে নিয়মটা আজ থেকে চালু হল। এটা আগেই ছিল। আগে অধিকাংশ সময়েই সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হত। কিন্তু দুর্ঘটনা আটকাতে এবং যাত্রীদের আরও বেশি সচেতন করতেই বর্তমানে এটাকে কঠিনভাবে বলবৎ করা হবে।’‌
কখনও হাত ঢুকিয়ে দরজা আটকানোর চেষ্টা, আবার কখনও সঙ্গে থাকা ব্যাগ দুই দরজার ফঁাকে ঢুকিয়ে দরজা ফের খুলে ট্রেনে ওঠানামার মতো বিষয়গুলি নজরে এসেছে মেট্রো কর্তৃপক্ষের। মেট্রোর এক আধিকারিক বলেন, মেট্রোর তরফে বারবার স্টেশনে প্রচার করা হচ্ছে যাত্রীরা যাতে ঠেলাঠেলি করে না ওঠেন বা দরজা জোর করে খোলার চেষ্টা না করেন। সেইসঙ্গে ভ্রমণের সময় কামরার দরজায় যেন হেলান দিয়ে না দঁাড়ান। কিন্তু তাতে খুব একটা ফল হচ্ছে না। ফলে জরিমানার দিকটিই এখন বেশি করে প্রয়োগের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যদিও শনিবার সজলবাবুর মৃত্যুর পর ফের আরেকটি নতুন তথ্যচিত্র প্রস্তুত করেছে মেট্রো। যেখানে নিরাপদে ভ্রমণ করার জন্য ১০ সেকেন্ডের এই তথ্যচিত্রটিতে যাত্রীরা কী করবেন আর কী করবেন না তা নিয়ে বিভিন্ন বিষয়গুলি উল্লেখ করা হয়েছে। স্টেশনে স্টেশনে এই তথ্যচিত্রটি চালানো হচ্ছে।‌

জনপ্রিয়

Back To Top