আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কেন্দ্রীয় সংগঠন বিলগ্নিকরণের প্রতিবাদে এবার পথে নামবে তৃণমূল। রাষ্ট্রীয় এবং রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিগুলির সামনেই হবে প্রতিবাদ, বিক্ষোভ। সোমবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে শ্রমিক দিবসের অনুষ্ঠানে গিয়ে এই ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। মমতা জানিয়ে দিলেন, আগামী ২৬ তারিখ কাশীপুর অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টরি, এবং ২৭ তারিখ কোল ইন্ডিয়ার সামনে প্রতিবাদ সভা হবে। ১৮ অক্টোবর শিয়ালদা থেকে ফেয়ারলিপ্লেসের সামনে পর্যন্ত প্রতিবাদ মিছিল হবে। তারপর দিল্লিতে ৪৮ ঘণ্টা ধরনা দেবে তৃণমূল। তারপর চেন্নাই, মুম্বই সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্যে বিরোদী দলগুলির সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করবে তৃণমূল।
মমতা এদিন বলেছেন, ‘‌‌আমার প্রতি ক্ষোভ থাকতে পারে। আমি কিন্তু কারও চাকরি খাইনি। ত্রিপুরায় ভোটের আগে বলেছিল সব ডিএ দিয়ে দেওয়া হবে। এখনও পর্যন্ত তা হয়নি।’‌ বিএসএনএল–এর কর্মীদের বেতন না পাওয়া, এয়ার ইন্ডিয়া বন্ধের চেষ্টা, প্রতিরক্ষা এবং ব্যাঙ্কিং ক্ষেত্রকে বিলগ্নিকরণের চেষ্টা, রেলের বেসরকারিকরণের প্রতিবাদ জানাতে সবাইকে স্বর ওঠাতে আবেদন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর আবেদন, ‘‌কথা বলতে ভয় পেলে সোশ্যাল সাইটে প্রতিবাদ জানান। আপনারা যদি সাহসী হন, আমি তাহলে দুঃসাহসী হব।’ রাজ্যের বিরোধী দলগুলির প্রতি উষ্মা প্রকাশ করে মমতা এদিন বলেছেন, তৃণমূলের কোনও ছোট ঘটনাতে বিক্ষোভ দেখালেও বিজেপির এধরনের জাতীয় ইস্যুগুলি নিয়ে কখনও প্রতিবাদ করেনি তারা।
জাতীয় নাগরিক পঞ্জি নিয়ে এদিন রাজ্য সরকারের অবস্থান স্পষ্ট করে মমতা বলেছেন, ‘‌এনআরসি নিয়ে অযথা ভয় পাবেন না।’‌ এরাজ্যে ইতিমধ্যেই এআরসি–র জন্য ৬ জনের মৃত্যুর জন্য আক্ষেপ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রীর সাফ মন্তব্য, ‘‌রাজ্য সরকারের অনুমোদন ছাড়া এনআরসি সম্ভব নয়। আমরা তো কখনওই তা করতে দেব না। বন্যায় নথি হারিয়ে গেলে থানায় একটা ডায়রি করে রাখুনন। ভোটার লিস্টে নাম তোলার কাজ চলছে। সেখানে সব জানান। ভয় পাবেন না। কোনও অসুবিধা হলে ‌দিদিকে বলো‌–তে অভিযোগ জানান। দ্রুত পদক্ষেপ করা হবে।’‌
ছবি:‌ এআইটিএমসি টুইটার 

জনপ্রিয়

Back To Top