আজকাল ওয়েবডেস্ক: বিজেপিকে রুখতে  তৃতীয় ফ্রন্টের পথে পা বাড়াচ্ছে অকংগ্রেসি দলগুলি। তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কেসিআর আনুষ্ঠানিকভাবে সেই ডাক দিয়েছেন। তাকে সমর্থন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও। এই নিয়ে কথা বলতে সম্ভবত ডিএমকে নেতা স্ট্যালিনকে ফোন করেন মুখ্যমন্ত্রী। ইউপিএ–র শরিক দল ডিএমকে। এর আগে রবিবার তামিলনাড়ুর ডিএমকে দলের কার্যনির্বাহী সভাপতি এম কে স্ট্যালিনের তাঁকে ফোন করেছিলেন। দীর্ঘক্ষণ কথা হয় তাঁদের। সূত্রর খবর, স্ট্যালিনও মমতার নেতৃত্বে কেন্দ্রে বৃহত্তর জোটের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন। সেইসঙ্গে তামিলনাড়ু ও পশ্চিমবঙ্গের এই দুটি দল একজোট হলে আগামী লোকসভায় কমপক্ষে ৭০–‌‌৭৫টি আসন পেয়ে অন্যতম নির্ণায়ক শক্তির আকার নিতে পারে বলে মমতাকে স্মরণ করিয়েছেন স্ট্যালিন। রবিবার আরও একটি ফোন কল পেয়েছিলেন মমতা ব্যানার্জি। সেটি এসেছিল মুম্বই থেকে। ওপারে ছিলেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। প্রায় দু–‌‌দশক ধরে বিজেপি–‌‌র সঙ্গী শিবসেনাও বিজেপি‌কে হঠাতে তৃণমূল নেত্রীর শরণাপন্ন। 
২০১৪–‌‌র পর থেকেই কেন্দ্রে অ–বিজেপি জোট গড়ার পক্ষে সওয়াল করে আসছেন মমতা। এই নিয়ে কখনও আম আদমি প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল, কখনও গুজরাটের পতিদার নেতা হার্দিক প্যাটেল, কখনও জিগনেশ মেবানির মতো নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। রাজনৈতিক দল হিসেবে ডিএমকে তৃণমূলের নতুন বন্ধু। ভবিষ্যতে এমন জোট হলে সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টি, এনসিপি, আরজেডি–র পাশাপাশি মজলিস–এ–ইত্তেহাদুল মুসলিমিনের প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসিও মমতার পাশে থাকবেন। ওদিকে, উত্তরপ্রদেশের গোরখপুর ও ফুলপুর লোকসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে ইতিমধ্যেই হাত মিলিয়েছেন অখিলেশ যাদব ও মায়াবতী।

জনপ্রিয়

Back To Top