দুর্গার ছবি ঘিরে বিতর্ক, খুনের হুমকি শিল্পীকে!

‌শ্রাবণী গুপ্ত:‌ এম এফ হুসেনের সরস্বতীর ছবি ঘিরে বিতর্ক অনেকেরই মনে আছে। এবার দুর্গার ছবি এঁকে নেটিজেনদের রোষের মুখে শিল্পী সনাতন দিন্দা। সম্প্রতি ‘‌মা আসছেন’‌ শিরোনামে একটি ছবি এঁকেছেন এই শিল্পী। সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ছবি প্রকাশের পরেই ক্ষুব্ধ কিছু মানুষ। তার বহিঃপ্রকাশ দেখা গেছে ফেসবুক, টুইটার সর্বত্র। আপাতত দ্বিধাবিভক্ত রাজ্যের মানুষ।
          এক নারীর মুখ এঁকেছেন শিল্পী। কপালে ত্রি–নেত্র, মাথা ঢাকা হিজাবে, মুখে নিকাব। চারকোল ড্রাই প্যাস্টেল ব্যবহার করা হয়েছে। পুজোর আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। এমন সময় ‘‌মা আসছেন’‌ শিরোনামে এই ছবিতে আসলে দেবী দুর্গাকে বোঝানো হয়েছে, দাবি নেটিজেনদের। এই প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে সনাতন দিন্দা aajkaal.in এর কাছে  সরাসরি বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেন। তিনি বলেন, ‘‌কোনও দেবী নয়, আমি মা এর ছবি এঁকেছি। দেশ কালের গণ্ডি পেরিয়ে আমাদের সবার মা। যাঁরা হিজাব আর নিকাবের কথা বলছেন, আমি তাঁদের অশিক্ষিত বলব। একটি আবরণ যাকে vail বলা যেতে পারে আমি তাই এঁকেছি। ওরা আমাকে খুনের হুমকি দিচ্ছে। আমার মেয়েকে তুলে নিয়ে যাবে বলছে। আমি আতঙ্কে রয়েছি। আজ অথবা কাল পুলিশের কাছে অভিযোগ জানাব। তারপরেই মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ হব।’‌ সনাতন আরও বলেন, ‘‌বিজেপি মহিলা মোর্চার ভাইস প্রেসিডেন্ট এটা নিয়ে অযথা জলঘোলা করেছেন। তারপরেই আমার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে বিজেপির আইটি সেল।’‌
সনাতনের অভিযোগের তির যাঁর দিকে, তিনি বিজেপি নেত্রী কেয়া ঘোষ।

নিজের ফেসবুক ওয়ালে সনাতনের আঁকা ছবি পোস্ট করে কেয়া লেখেন, ‘‌শিল্পী(?) সনাতন দিন্দার আঁকা হিজাব পরা মা দুর্গাকে দেখে সত্যিই চমকে উঠেছিলাম..’‌। aajkaal.in কেয়া ঘোষের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তিনি বলেন, ‘‌কপালে ত্রিনয়ন, আবার হিজাব ও নিকাব রয়েছে। বোঝাই যাচ্ছে উনি আফগান মহিলাদের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে এই ছবি এঁকেছেন। ওনার সহানুভূতি, সহমর্মিতা থাকতেই পারে কিন্তু সেই কারণে অসংখ্য মানুষের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার কোনও অধিকার নেই ওনার। তবে যদি কেউ সত্যি খুনের হুমকি দিয়ে থাকে উনি সেই প্রমাণ নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন। বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে উনি নিজেই এই বিষয়ের মধ্যে রাজনীতি টেনে আনছেন।’
               শিল্পী সনাতন দিন্দার পাশে দাঁড়ালেও কিঞ্চিৎ ভিন্ন ভাবনার কথা শোনালেন আরেক শিল্পী সমীর আইচ। aajkaal.in কে তিনি বললেন, ‘‌এটা শিল্পীর রুচির বিষয় তিনি কী সৃষ্টি করবেন। মুখ্যমন্ত্রীর মুখ দিয়েও প্রতিমা তৈরি হচ্ছে। তবে খুনের হুমকি দেওয়া অসভ্যতা, বর্বরোচিত কাজ। কিন্তু একজন শিল্পীরও মাথায় রাখা উচিত, দেব–দেবীদের নিয়ে প্রচুর মানুষের আবেগ থাকে। তাই এই সব ক্ষেত্রে কাজ করতে গেলে একটু সতর্ক থাকা দরকার।’‌            এক শিল্পীর শিল্প সৃষ্টির স্বাধীনতা বনাম ধর্মীয় আবেগ ও রাজনীতি। আপাতত এই বিতর্কে আবর্তিত হচ্ছে বাংলার বুদ্ধিজীবী ও রাজনৈতিক মহল। তবে, একজন সাধারণ মানুষের বেঁচে থাকার অধিকার যখন প্রশ্নের মুখে, তখন কী হবে? এই প্রশ্নের জবাব খুঁজছেন সনাতন দিন্দা।