Cafe: উৎসবের নামে তোলাবাজি যোধপুর পার্কে!‌ থানায় জানানোর পথে বাধা দেওয়ার অভিযোগ

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ উৎসবের নামে চাঁদা!‌ আর সেই চাঁদার জন্য রীতিমতো জোরজুলুম চলল।

তাও আবার খোদ কলকাতায়। যোধপুর পার্কে। হেনস্থার শিকার হলেন এক মহিলা। এখানেই শেষ নয়, অভিযোগ, থানায় যাওয়ার সময়ও তাঁকে হেনস্থা করা হয়। আর এসবের জন্য আঙুল উঠল স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলরের দিকে।
যোধপুর পার্ক এলাকায় একটি ক্যাফে চালান ওই তরুণী। তাঁর থেকে ‘‌যোধপুর পার্ক উৎসব’‌–এর নামে চাঁদা চাওয়া হয়। বিজ্ঞাপনের রেট চার্টও ধরিয়ে দেওয়া হয়। চাপ দেওয়া হয়, বিজ্ঞাপন দিতেই হবে। কর্ত্রী টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাঁর ক্যাফের বাইরে জড়ো হন কয়েক জন। সিসিটিভি ফুটেজে বিষয়টি দেখা গিয়েছে। অভিযোগ, গোটা ঘটনার ভিডিও রেকর্ডিং করতে চাইলে মোবাইল ফোনও কেড়ে নেয় অভিযুক্তরা। 
এর পরেই ক্যাফের কর্ত্রী রাজ্য মহিলা কমিশনে যোগাযোগ করেন। সেখান থেকে তাঁকে লেক থানায় যাওয়ার পরমার্শ দেওয়া হয়। কর্ত্রী জানিয়েছেন, এর পরেও থামেনি হেনস্থা। লেক থানায় অভিযোগ দায়ের করে ফেরার সময় তাঁর গাড়ি আটকানোর চেষ্টা হয়। বাইকে চেপে কয়েক জন তাঁকে ধাওয়া করে বলেও অভিযোগ। সেই সময় যাদবপুর থানার সামনে গাড়ি থামিয়ে কোনওক্রমে রক্ষা পান তিনি। পরে পুলিশি নিরাপত্তায় বাড়ি পৌঁছন, দাবি ক্যাফের কর্ত্রীর।

Jobs Quota: সুপ্রিম কোর্টে স্বস্তি, চাকরির ৭৫%‌ স্থানীয়দের জন্যই সংরক্ষিত থাকছে এই রাজ্যে


পুলিশ জানিয়েছে, অভিযোগের তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ জানিয়েছেন, এই ঘটনা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক, অনভিপ্রেত। তৃণমূল কংগ্রেস কোনও অবস্থাতেই এরকম কোনও কাজ সমর্থন করে না। তিনি এও জানালেন, পুলিশকে তৃণমূলের তরফে নিরপেক্ষভাবে কাজ করার অনুরোধ করা হবে। তাঁর দাবি, নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে এফআইআর করে নির্দিষ্ট ব্যবস্থা নেওয়া হোক। বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ জানালেন, রাজ্যে এ রকম ঘটনা নতুন নয়। বাম নেতা সুজন চক্রবর্তীর খোঁচা, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এক জন মহিলা। তার পরেও তাঁর দলের লোক মহিলাদের হেনস্থা করছে। 

আকর্ষণীয় খবর