আজকালের প্রতিবেদন: শহরে হোম আইসোলেশনে থাকা করোনা আক্রান্তরা সরকারি বিধি অমান্য করলে কড়া ব্যবস্থা নেবে কলকাতা পুরসভা। নিয়ম ভঙ্গকারীদের বাড়িতে চিঠি পাঠিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে আক্রান্ত ব্যক্তির হোম আইসোলেশন গ্রহণযোগ্য নয়। শুক্রবার এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুর কর্তৃপক্ষ। হোম আইসোলেশনে থাকা ব্যক্তিদের থেকে শহরে করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। পুর স্বাস্থ্য দপ্তরের সমীক্ষায় বিষয়টি নজরে এসেছে। এনিয়ে উদ্বিগ্ন পুর প্রশাসন। 
এদিন করোনা পরিস্থিতি নিয়ে পুর ও রাজ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন পুর স্বাস্থ্য দপ্তরের দায়িত্বে থাকা পুর প্রশাসকম‌ণ্ডলীর সদস্য অতীন ঘোষ। পরে তিনি জানান, হোম আইসোলেশনে থাকা ৫০–৬০ শতাংশ মানুষ সরকারি বিধি মানছেন না। আইসোলেশনে থাকার সরকারি শর্তও অগ্রাহ্য করছেন। স্বল্প উপসর্গ, উপসর্গহীনদের বাড়িতেই আইসোলেশনে থাকার অনুমতি দিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে এজন্য তিনটি শর্ত মানতে হয়। প্রথমত, আক্রান্তের নিজস্ব স্বাক্ষর–‌সহ জবানবন্দির সার্টিফিকেট। দ্বিতীয়ত, আক্রান্ত যে ডাক্তারের অধীনে হোম আইসোলেশনে থাকবেন তাঁর স্বাক্ষর করা শংসাপত্র। তৃতীয়ত, আক্রান্তকে বাড়িতে যিনি দেখাশোনা করবেন, তা সে পরিবারের সদস্য বা আয়া তাঁর সমস্ত নথি। এই তিনটি শর্ত পূরণ করতে পারলে পুরসভায় সেই আক্রান্তের হোম আইসোলেশন গ্রহণযোগ্য। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, আক্রান্ত কিংবা তাঁর বাড়ির লোক গোপনে বাইরে গিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে যাচ্ছেন। ছড়াচ্ছেন সংক্রমণ। তাই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, যাঁরা হোম আইসোলেশনের শর্ত মানবেন না, তাঁদের হোম আইসোলেশনের স্বীকৃতি দেওয়া হবে না। তাঁদের চিঠি, মোবাইলে হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেজ করে পুরসভা তা জানিয়ে দেবে। অর্থাৎ চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে পুরসভা ওই ব্যক্তির হোম আইসোলেশন মানছে না। আর ওই চিঠির প্রতিলিপি স্থানীয় থানায় জমা দেওয়া হবে। এমনই একটি নির্দেশিকা পুরসভার প্রতিটি বরো এবং ওয়ার্ড স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। প্রয়োজনে আক্রান্তের শারীরিক অবস্থা দেখে সেফ হোম কিংবা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে। এখন প্রশ্ন, বাড়ির মধ্যে হোম আইসোলেশন মানছেন কিনা তা জানা সম্ভব। এপ্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, কলকাতায় আক্রান্তের তালিকা পুর স্বাস্থ্য দপ্তরের কাছে রয়েছে। হাসপাতালে যাঁরা ভর্তি হচ্ছেন তার তথ্যও পুরসভা রাখছে। আর বাড়িতে আইসোলেশনে থাকার ক্ষেত্রে পুরসভাকে জানাতে হবে। এরপর পুর স্বাস্থ্যকর্মীরা গিয়ে তাঁর খোঁজখবর নেন। যাঁরা বাড়িতে থাকছেন, তাঁদের হোম আইসোলেশনে থাকার জন্য তিনটি সার্টিফিকেট দেখাতে হয়। এই তিন সার্টিফিকেট যাঁরা দেখাতে পারছেন না, তাঁরাই বিধি ভঙ্গ করছেন। নীরবে সংক্রমণ ছড়িয়ে যাচ্ছেন। সেজন্য পুরসভা এই কড়া ব্যবস্থা নিচ্ছে।‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top