আজকালের প্রতিবেদন
‘‌২০১১ সালের ২০ মে, যেদিন মাননীয় মমতা ব্যানার্জি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন সেদিন থেকেই তাঁর লক্ষ্য ছিল বাংলাকে বিশ্বের সংস্কৃতি জগতের তোরণদ্বারে পরিণত করা’‌, বললেন তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন। শনিবার সকালে রবীন্দ্রসদনে। বাংলা সঙ্গীত মেলার সাংবাদিক সম্মেলনে। বললেন, ‘‌রাজ্য সরকারের উদ্যোগে এখনও পর্যন্ত ১ লক্ষ ৯৪ হাজার লোকশিল্পীকে ভাতা দেওয়া হচ্ছে।’‌ বললেন, ‘‌এত বড় সঙ্গীত মেলা পৃথিবীর আর কোথাও হয় না।’‌
এবারের সঙ্গীত মেলা শুরু হচ্ছে ৪ ডিসেম্বর। একই সঙ্গে শুরু হবে ‘‌বিশ্ববাংলা লোকসংস্কৃতি উৎসব’‌ও। নজরুল মঞ্চে এই মেলার উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এবার কলকাতার দশটি মঞ্চে হবে এই উৎসব— রবীন্দ্রসদন, শিশির মঞ্চ, রবীন্দ্র–‌ওকাকুরা ভবন, 
ফণীভূষণ বিদ্যাবিনোদ যাত্রা মঞ্চ, 
মোহরকুঞ্জ, হেদুয়া পার্ক, মধুসূদন মুক্তমঞ্চ, একতারা মুক্তমঞ্চ, দেশপ্রিয় পার্ক ও রাজ্য সঙ্গীত আকাদেমি মুক্তমঞ্চে। আর ৫ তারিখ 
থেকে ৮ তারিখ চারুকলা পর্ষদ প্রাঙ্গণ সংলগ্ন মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্ববাংলা 
লোকসংস্কৃতি উৎসব।
এবারের সঙ্গীত মেলায় প্রদান করা হবে বিশেষ সঙ্গীত মহাসম্মান, সঙ্গীত মহাসম্মান, সঙ্গীত সম্মান। কলকাতার ১০টি মঞ্চে অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন ৫ হাজারেরও বেশি সঙ্গীতশিল্পী ও যন্ত্রসঙ্গীত শিল্পী। কলকাতা ছাড়াও অংশ নেবেন জেলার শিল্পীরা। পশ্চিমবঙ্গ সরকার আয়োজিত বিভিন্ন সঙ্গীত প্রতিযোগিতা ও কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী প্রতিভাবান নবীন শিল্পীরাও অংশ নেবেন। ৩২টি স্কুল ও ১৬টি কলেজের ছাত্রছাত্রীরাও গান গাইবেন। বিশ্ববাংলা লোকসংস্কৃতি উৎসবে অংশ নেবেন সব জেলার লোকশিল্পীরা। ৫ থেকে ১২ ডিসেম্বর হবে পাড়ায় পাড়ায় সঙ্গীত মেলা। গগনেন্দ্র প্রদর্শশালায় থাকবে ‘‌শ্রদ্ধাঞ্জলি— ‌মান্না দে: সে নাম রয়ে যাবে.‌.‌.‌’‌ শীর্ষক প্রদর্শনী। ১২ ডিসেম্বর একতারা মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ‘‌বাংলা গান: গ্রামোফোন থেকে ইউটিউব’‌ শীর্ষক আলোচনা সভা। অংশ নেবেন বিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পীরা। উৎসব চলবে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

জনপ্রিয়

Back To Top