Surajit Sengupta: এক অধ্যায়ের শেষ, শিল্পী ফুটবলারকে হারাল কলকাতা ময়দান

আজকাল ওয়েবডেস্ক: করোনার কাছে আত্মসমর্পণ আরও একজন শিল্পী ফুটবলারের।

পায়ের জাদুতে একসময় মুগ্ধ করেছিলেন। কেড়ে নিয়েছিলেন সাতের দশকের ফুটবলপ্রেমীদের মন। আজ যাবতীয় সম্পর্ক ছিন্ন করে অমৃতলোকে পাড়ি দিলেন। শিল্পী ফুটবলার হিসেবেই ভারতীয় ফুটবলে পরিচিত ছিলেন সুরজিৎ সেনগুপ্ত। তাঁর ড্রিবলিং, ডান প্রান্ত দিয়ে বল নিয়ে ছোটা সবই ছিল দর্শকদের চোখের আরাম। হুগলি জেলার চকবাজারের ছেলে সুরজিৎ নজরে পড়ে যান ফুটবলার গড়ার কারিগর অশ্বিনী বরাট ওরফে ভোলা দার। হগলী ব্রাঞ্চ স্কুলে পড়ার সময় ভোলাদার হাতে তৈরি হন সুরজিৎ, যাঁর ডাকনাম ছিল বিশু। বাবা সুহাস সেনগুপ্ত ছিলেন ডানলপ ইন্ডিয়ার কর্মী। তিনি নিজে চুটিয়ে ক্রিকেট এবং ফুটবল খেলেছেন। পারিবারিক ঘরানায় সমৃদ্ধ সুরজিৎ হুগলি মহসিন কলেজে পড়ার সময়  কলকাতার রবার্ট হাডসন ক্লাবে খেলা শুরু করেন। 

সেখান থেকে ফুটবলের আতুরঘর খিদিরপুরে যোগ দেন ভুতো দার সাহচর্যে। সেই সময় খিদিরপুরে প্রতিভার ছড়াছড়ি। প্রসূন বন্দোপাধ্যায়, শ্যামল ঘোষ, গৌতম সরকার, রঞ্জিত মুখোপাধ্যায় - কে নেই! সেখান থেকে শৈলেন মান্নার হাত ধরে মোহনবাগানে। পরের বছরই ইস্টবেঙ্গলে। লাল হলুদ জার্সিতেই সুরজিতের  বিচ্ছুরণ। সন্তোষ ট্রফিতে বাংলার হয়ে খেলেছেন। ভারতীয় দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন। গোল করিয়েছেন, নিজে অসাধারণ সব গোল করেছেন। দক্ষিণ কোরিয়া একাদশের বিরুদ্ধে তাঁর শূন্য ডিগ্রি অ্যাঙ্গেল থেকে একটি গোল মার্কো ভ্যান বাসতেনকে মনে পড়ায়। 

ফুটবল ছাড়ার পর সতীর্থদের মতো কোচিংয়ে আসেননি প্রয়াত প্রবাদপ্রতিম ফুটবলার। ময়দান থেকে নিজেকে কিছুটা দূরেই সরিয়ে রেখেছিলেন তিনি। যদিও তাঁর সময়ের বাকি ফুটবলারদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল।  সুরজিৎ সেনগুপ্ত ক্রীড়া সাংবাদিকতায়ও বলিষ্ঠ ছিলেন। আজকাল সংবাদপত্রে প্রশাসনিক পদে ছিলেন স্টেট ব্যাংক থেকে স্বেচ্ছাবসর নেওয়ার পর। তাঁর প্রয়াণে গভীর শোক নেমে এসেছে কলকাতা ময়দানে।

আকর্ষণীয় খবর