Kolkata Highcourt: ‌‌৩৫ সপ্তাহ পরেও ভ্রুণহত্যার অনুমতি হাইকোর্টের  

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ৩৫ সপ্তাহের সন্তানসম্ভবা এক গর্ভবতীকে দেওয়া হল গর্ভপাতের অনুমতি।

এক দম্পতির আবেদনের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার এই রায় দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। আইন অনুযায়ী ২৪ সপ্তাহের পর গর্ভপাত করানো বেআইনি। কিন্তু এক্ষেত্রে ভবিষ্যতে মা এবং সদ্যোজাতের বড় সমস্যা দেখা দিতে পারে। চিকিৎসকদের সঙ্গে পরামর্শের পর এমন আশঙ্কা থেকেই প্রসূতির অনুমতি নিয়ে এই নজিরবিহীন রায় দিয়েছে হাইকোর্ট। 
এটা ঘটনা গর্ভপাতের আবেদন করে গত সপ্তাহে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন উত্তর কলকাতার এক দম্পতি। বিবাহের পর থেকেই নানা শারীরিক সমস্যার কারণে তাঁদের সন্তান হয়নি। অবশেষে চিকিৎসার পর গর্ভবতী হন মহিলা। কিন্তু গর্ভধারণের পর থেকেই আবার সমস্যা শুরু হয়। বহু চিকিৎসকের পরামর্শও নেন তাঁরা। চিকিৎসকেরা দম্পতিকে জানান, এই অবস্থায় ওই মহিলা যদি সন্তান প্রসব করেন, তাহলে সমস্যা আরও বাড়তে পারে। শুধু তাই নয়, গর্ভস্থ ভ্রুণের স্পাইনাল কর্ডে জটিল জন্মঘটিত সমস্যা থাকায় জন্মের পরেও সদ্যোজাত কোনও দিন সুস্থ হতে পারবে না। এরপরেই গর্ভপাতের সিদ্ধান্ত নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হন ওই দম্পতি। 
দম্পতির আবেদনের ভিত্তিতে এরপর এসএসকেএম হাসপাতালে ন’জন চিকিৎসকের একটি কমিটি গঠন করেন বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা। তাঁদের পরামর্শও নেন বিচারপতি। চিকিৎসকদের কমিটিও বিচারপতিকে জানান, সন্তান প্রসব করলে ওই মহিলা এবং সদ্যোজাত দু’জনেরই ক্ষতি হবে। এরপরেই সরাসরি মহিলার মতামত জেনে গর্ভপাতের আর্জি মঞ্জুর করেন বিচারপতি মান্থা। বিচারপতি অবশ্য বলেছেন, গর্ভপাত করার সময় কোনও সমস্যা হলে দম্পতি কাউকে দায়ী করতে পারবেন না। আদালত বা চিকিৎসকেরা তার দায় নেবে না। 
এর আগেও ২৪ সপ্তাহের পর গর্ভপাতের অনুমতি দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু এই প্রথম ৩৫ সপ্তাহের কোনও সন্তানসম্ভবা মহিলাকে গর্ভপাতের অনুমতি দেওয়া হল।

আরও পড়ুন:‌ দুর্ঘটনার কারণ খুঁজতে ট্রেনেও বসানো হচ্ছে ব্ল্যাকবক্স ধাঁচের যন্ত্র 


 

আকর্ষণীয় খবর