আজকালের প্রতিবেদন: বইপ্রেমীদের বই দেখা ও কেনার সুবিধার জন্য এবার বইমেলা প্রাঙ্গণে ফাঁকা জায়গা বাড়ানো হচ্ছে। দীর্ঘক্ষণ ঘোরার পর কেউ চাইলে প্রাঙ্গণে যাতে একটু জিরিয়েও নিতে পারেন তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার সেন্ট্রাল পার্কের মেলা প্রাঙ্গণ পরিদর্শনের পর এ কথা জানিয়েছেন পাবলিশার্স অ্যান্ড বুক সেলার্স গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক সুধাংশুশেখর দে।
এদিন বইমেলার প্রস্তুতি কেমন হচ্ছে তা দেখতে বিধাননগরে সেন্ট্রাল পার্কের মেলা প্রাঙ্গণ পরিদর্শনে আসেন বইমেলার আয়োজকেরা। িছলেন পাবলিসার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সভাপতি ত্রিদিবকুমার চট্টোপাধ্যায়, সাধারণ সম্পাদক সুধাংশুশেখর দে, বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের ডিসি রণেন্দ্রনাথ ব্যানার্জি, দমকল, বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মীরা। পরে রণেন্দ্রনাথ ব্যানার্জি বলেন, একসঙ্গে অনেক গাড়ি এক জায়গায় চলে এসে যাতে সমস্যা তৈরি না হয়, সেদিকে নজর দেওয়া হচ্ছে। প্রচুর মানুষ আসবেন। তাঁদের পারাপারের জন্য করুণাময়ী মোড়ে অবস্থিত মেট্রো রেলের সাবওয়ে ব্যবহার করা হবে। গাড়ি রাখার জন্য ৪টি পার্কিং লট করা হচ্ছে। এ ছাড়া সাইকেল রাখার জন্য আলাদা জায়গা হচ্ছে। সুধাংশুশেখর দে বলেন, মেলায় আগতদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সবরকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, চাহিদা তৈরি হলে অনেক সময় অটো বেশি ভাড়া নিয়ে থাকে, এমন অভিযোগ ওঠে। বইমেলার সময় এরকম যাতে না হয়, তার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। অটো ইউনিয়নগুলোর কাছ থেকে ভাড়ার তালিকা নেওয়া হয়েছে। বইমেলা চত্বরের আশপাশে সেই ভাড়ার তালিকা টাঙানো থাকবে। কোথায় গেলে কত ভাড়া, তা যাত্রীরা আগেই জেনে নিতে পারবেন।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top