খাস কলকাতায় রোবটের হাতে হল কিডনি প্রতিস্থাপন, প্রৌঢ় পেলেন নতুন জীবন

আজকাল ওয়েবডেস্ক: কিডনি বিকল। বহুদিন ধরেই ডায়ালিসিস চলছিল। এই পরিস্থিতিতে চিকিৎসকরা বুঝতে পারছিলেন কিডনি প্রতিস্থাপন অবশ্যম্ভাবী। কিডনিদাতারও সন্ধান পাওয়া যায়। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে ডায়ালিসিস চলা রোগীর কিডনি প্রতিস্থাপন করতে গিয়ে যে রক্তক্ষরণ হবে তা সহ্য করতে পারবেন তো ওই ব্যক্তি? তা নিয়ে ভাবনায় ছিলেন চিকিৎসকরা। সাধারণত ৫ ইঞ্চির কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য একটি বড়োসড়ো গর্ত করতে হয় পেটে। কিন্তু তাতে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয় কিন্তু ওই ব্যক্তি শরীরের সেই ধাক্কা সামলাতে পারবেন কিনা তা নিয়ে আশঙ্কায় ছিলেন চিকিৎসকরা।

আর তার পরেই বের করলেন প্ল্যান বি। চিকিৎসকরা ঠিক করেন রোবোটিক্সের মাধ্যমেই এই অস্ত্রপচার সম্পন্ন হবে। এই মাধ্যমে মাত্র আড়াই ইঞ্চি একটা ফুটো করা হয় নাভির পাশে। আরও একটি ছোট ছোট সাইজের গর্ত করা হয় তলপেটে। তাতেই সম্পূর্ণ প্রতিস্থাপন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। এতে রক্তক্ষরণ অনেকটা কম হয়। চিকিৎসকরা বলছেন, সাধারণভাবে কিডনির রক্তক্ষরণ হয় তার দশ ভাগ কম এতে রক্তক্ষরণ হয়।

গত শনিবার এই শহরেরই একটি হাসপাতালে যান্ত্রিক হাতেই শুরু হয় এই জটিল সার্জারি। দূর থেকে সমস্ত প্রক্রিয়াটি পরিচালনা করছিলেন চিকিৎসক বিনয় মহিন্দ্রা। সহকারী ছিলেন চিকিৎসক ত্রিদিবেশ মণ্ডল। যদিও সাধারণ কিডনি প্রতিস্থাপনের চেয়ে এক ঘন্টা বেশি লাগে। কিন্তু এই প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে রোগীর সুস্থ হয়ে ওঠার প্রক্রিয়া অনেকটাই তাড়াতাড়ি হয়।

এ বিষয়ে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আগামী ২০ থেকে ২৫ বছর সুস্থভাবেই বাঁচবেন এই রোগী। প্রথম তিন মাস সপ্তাহে একবার তাঁকে চেকআপে আসতে হবে। পরের তিন মাস দুই সপ্তাহে একবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করলেই যথেষ্ট। ইনিই প্রথম ব্যক্তি যার যন্ত্রের সাহায্যে কিডনি প্রতিস্থাপন হল।