আজকালের প্রতিবেদন‌‌‌‌: জামাইষষ্ঠীতে আকাশছেঁায়া ফলের দাম। মাছের বাজারও আগুন। হাত পুড়িয়েই বাজারে হাজির বিত্তমধ্য বাঙালি। আজ জামাইষষ্ঠী, বাঙালির ১২ মাসে ১৩ পার্বণের অন্যতম। বছরে এই একটি দিন জামাই–‌আদরে খামতি রাখতে চান না কেউই। পাত সাজাতে সবজি থেকে মাছ–মাংস, ফল থেকে মিষ্টি— রাখতে হবে সবই। সকাল থেকেই তাই ফল ও মাছের বাজারে ঢল ক্রেতাদের। ভিড় উপচে পড়ছে মিষ্টির দোকানগুলিতে। চলছে কেনাকাটা।
জামাইষষ্ঠীতে ফল, বিশেষ করে আম আর লিচুর চাহিদা থাকে সবচেয়ে বেশি। কিন্তু রোজকার এই ফলের দামই বেড়ে গেছে কয়েক গুণ। আম ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি, জাম ১৫০ থেকে ২০০ টাকা কেজি, লিচু ১০০ টাকা কেজি, আপেল ২০০ টাকা কেজি।
বাঙালির ঘরের অনুষ্ঠান মাছ ছাড়া চলে না। বিশেষ দিনে জামাইয়ের পাতে মাছ পড়বে না, তা কি হয়!‌ কিন্তু মাছের দাম এক লাফে অনেকটাই বেড়েছে জামাইষষ্ঠীতে। ছোট থেকে মাঝারি ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকায়। বড় ইলিশের দাম প্রায় ২০০০ টাকা। বাগদা চিংড়ি ৩০০ টাকা, গলদা ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা। পমফ্রেট ৫০০ টাকা, পাবদা ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা কেজি। মাছের পরেই আমিষে থাকে চিকেন বা মাটনের পদ। মুরগির মাংস ১৯০ থেকে ২০০ টাকা এবং মাটন ৭০০ টাকা কেজি। তবে জেলার দিকে কোথাও কোথাও ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকায় মিলছে মাটন। পাশাপাশি বেড়েছে বাঙালির হররোজের সবজির দামও। পটল ১ কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ঝিঙে ৩০ টাকা, কঁাচা লঙ্কা ১২০ টাকা, আলু চন্দ্রমুখী ২২ টাকা, জ্যোতি ১৫ টাকা কেজি। বেগুন ৪০ টাকা, পেঁয়াজ ২০ টাকা, ঢ্যঁাড়শ ৫০ টাকা কেজি। তবে দাম যা–‌ই হোক, কেনাকাটা চলছে জোর–‌কদমে, জানাচ্ছেন বিক্রেতারাই।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top