IVF Treatment: এবার জেলা হাসপাতালে চালু হবে আইভিএফ চিকিৎসার প্রথম ধাপ

বিভাস ভট্টাচার্য:‌ বন্ধ্যাত্ব দূরীকরণে বড়সড় পদক্ষেপ রাজ্যের।

এসএসকেএমের পর এবার জেলাস্তরের হাসপাতালেও চালু হতে চলেছে এই বিশেষ ক্লিনিক। যেখানে মা হতে ইচ্ছুক মহিলাদের দেওয়া হবে প্রয়োজনীয় পরামর্শ। করা হবে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা। দেওয়া হবে এই সংক্রান্ত ওষুধ। চূ‌ড়ান্ত পর্যায়ে তাঁদের নিয়ে আসা হবে এসএসকেএম হাসপাতালে। কীভাবে বিষয়টি নিয়ে এগোতে হবে সেবিষয়ে সোমবার এসএসকেএম হাসপাতালে একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক হয়। ছিলেন রাজ্যের মেডিক্যাল শিক্ষা অধিকর্তা  ডা: দেবাশিস ভট্টাচার্য, ঘোষ দস্তিদার ইনস্টিটিউট ফর ফার্টিলিটি রিসার্চ–এর অধিকর্তা ডা: সুদর্শন ঘোষ দস্তিদার, এসএসকেএমের ডিরেক্টর ডা: মণিময় বন্দ্যোপাধ্যায়–সহ হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্তা এবং বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধানরা। ছিলেন জেলাস্তরে কর্মরত চিকিৎসকরা।
 কৃত্তিমভাবে সন্তান ধারণের জন্য ইতিমধ্যেই এসএসকেএমে ঘোষ দস্তিদার ইনস্টিটিউট ফর ফার্টিলিটি রিসার্চের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে চালু হয়ে গিয়েছে আইভিএফ বা টেস্ট টিউব বেবির জন্য চিকিৎসা। কিন্তু রাজ্যের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও যাতে এই পরিষেবার প্রাথমিক স্তর পৌঁছে দেওয়া যায় সেবিষয়েই সোমবারের এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়। Aajkaal.inকে ডা:  সুদর্শন ঘোষ দস্তিদার বলেন, ‘‌গরিব মানুষের জন্য এই চিকিৎসার ব্যবস্থা করা আমাদের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীর একটা স্বপ্ন। কারণ, এই ধরনের চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল। এসএসকেএমে আইভিএফের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা চালু হলেও প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে একজন মহিলার পক্ষে নিয়মিতভাবে আসাটা সম্ভব নাও হতে পারে। সেকথা ভেবেই জেলা স্তরে এই চিকিৎসার প্রাথমিক পর্যায়ের কাজটা চালু করা হবে। সেজন্য চিকিৎসকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হবে। চূড়ান্ত পর্যায়ের কাজটা হবে এসএসকেএমে।’‌ 
ব্যয়বহুল হওয়ার জন্য ইচ্ছে থাকলেও অনেক সন্তানহীন বহু দম্পতিই এই চিকিৎসা করাতে পারেন না। রাজ্যে সরকারিস্তরে এই পরিষেবা চালু হয়েছে একমাত্র এসএসকেএম হাসপাতালে। যার সুবিধা পাচ্ছেন রাজ্যের মানুষ। ক্লিনিকে সকাল থেকেই ভিড় হচ্ছে। জেলাস্তরে চালু হওয়ার পর প্রয়োজনে কলকাতা থেকে টেলি কনফারেন্সে পরামর্শ এবং টেলি মেডিসিনেরও ব্যবস্থা করা হবে। 
এবিষয়ে এসএসকেএমের স্ত্রী রোগ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা: সুভাষ বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‌বিনামূল্যে গোটা দেশে এরকম উদ্যোগ আর কোথাও নেওয়া হয়নি। একমাত্র আমাদের রাজ্যেই হয়েছে। সন্তান কামনা নিয়ে হাসপাতালে আমাদের কাছে বহু মহিলা আসেন। ফলে নিশ্চিতভাবেই এটা তাঁদের জন্য একটা গুরুত্বপূর্ণ এবং সময়োপযোগী পদক্ষেপ।’‌ 

আরও পড়ুন:‌ সব মামলায় জামিন পেলেন রোদ্দুর রায় 


 

আকর্ষণীয় খবর