আজকালের প্রতিবেদন: সোনা কি আদৌ খাওয়া উচিত?‌ প্রশ্ন উঠল বিজ্ঞান মঞ্চে। বুধবার বিধাননগরে বোস ইনস্টিটিউটে ইন্ডিয়া ইন্টারন্যাশনাল সায়েন্স ফেস্টিভ্যাল ২০১৯–এর এক আলোচনাসভায় বিষয়টি ওঠে। সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি মিডিয়া কনক্লেভ বা বিজ্ঞানের ঘটনা বা বিজ্ঞানের অগ্রগতি নিয়ে কীভাবে সংবাদ পরিবেশন করা উচিত, তা নিয়ে এক আলোচনা সভায় সঞ্চালক, নেচার ইন্ডিয়ার সম্পাদক শুভ্রা প্রিয়দর্শিনী বলেন, ‘‌গরুর দুধে নাকি সোনা আছে!‌ লোকে জানতে চাইছে, সোনা কি আদৌ খাওয়া উচিত?‌’‌ কার্যত এই কথায় প্রেক্ষাগৃহে উপস্থিত দর্শকদের মধ্যে হাসির রোল ওঠে। হাসতে শুরু করেন মঞ্চে উপস্থিত অন্য বক্তারাও। উল্লেখ্য, গরুর দুধে সোনা আছে বলে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ যে মন্তব্য করেছেন, তা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। উঠেছে সমালোচনার ঝড়। 
এদিনের সভায় উপস্থিত সকলেই একমত হয়েছেন, বিজ্ঞানকে আরও বেশি জনপ্রিয় করে তুলতে আঞ্চলিক ভাষায় সহজ করে সাধারণের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। শুভ্রা বলেন, স্কুল পর্যায় থেকেই এটা শুরু করা দরকার। দ্য প্রিন্ট–এর বিজ্ঞান বিষয়ক বিভাগের সম্পাদক সন্ধ্যা রমেশের মতে, জনপ্রিয়তার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া হয়ে উঠতে পারে একটা বড় মাধ্যম। খবরের সঙ্গে রাখতে হবে প্রয়োজনীয় ছবিও। উদাহরণ দিয়ে ডাউন টু আর্থের পক্ষে সুপর্ণ ব্যানার্জি বলেন, দূষিত কোনও এলাকার বাসিন্দার ফুসফুসের ছবির পাশাপাশি যদি দূষণমুক্ত কোনও এলাকার বাসিন্দার ফুসফুসের ছবি রাখা যায়, তবে তফাতটা অতি সহজেই একজন মানুষ বুঝতে পারবেন। পাশাপাশি যে কোনও বিষয় যদি ব্যাখ্যা করে বলা যায়, তবে তা অনেক বেশি বুঝতে সুবিধা হয়। ছিলেন অল ইন্ডিয়া রেডিওর পক্ষে মানসপ্রতীম দাস, ডিবিটি–ওয়েলকাম ট্রাস্টের পক্ষে সারা ইকবাল। ‌‌‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top