প্রিয়দর্শী বন্দ্যোপাধ্যায়: আগামী গ্রীষ্মের আগে হাওড়া শহরে জলসমস্যা মিটে যাবে। সেই লক্ষ্যেই জোরকদমে কাজ চলছে। প্রয়োজনীয় সমস্ত পদক্ষেপ করা হয়েছে। মঙ্গলবার হাওড়া পদ্মপুকুরে নির্মীয়মাণ দ্বিতীয় জলপ্রকল্পের পরিদর্শনে এসে এ কথা জানান পুর ও নগরোন্নয়নমন্ত্রী তথা কলকাতার মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম। সঙ্গে ছিলেন সমবায়মন্ত্রী অরূপ রায়, কেএমডিএ ও হাওড়া পুরনিগমের একাধিক কর্তা ও ইঞ্জিনিয়াররা।
পুরমন্ত্রী এদিন জানান, এ ব্যাপারে বন্দর কর্তৃপক্ষের অফিসার ও ইঞ্জিনিয়ারদের সঙ্গেও আলোচনা হয়েছে। তাঁদের পরামর্শে নাজিরগঞ্জের গোয়াবেড়িয়ায় যে ইনটেক জেটি তৈরি করা হচ্ছে সেখানেও কিছু পরিবর্তন করা হচ্ছে। এই কাজের জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে আমরা অনুমতি চেয়ে প্রয়োজনীয় টাকাও জমা দিয়েছি। বুধবার থেকে জোরকদমে কাজ শুরু হয়ে যাবে। পাশাপাশি বন্দর কর্তৃপক্ষও তাঁদের মতো পুরো কাজ খতিয়ে দেখে মনে করলে আমাদের কিছু পরামর্শ দেবে। আমরা চাইছি, যত দ্রুত সম্ভব দ্বিতীয় জলপ্রকল্পের কাজ শেষ করে হাওড়ার মানুষকে জল সমস্যার হাত থেকে মুক্তি দিতে। আগামী গ্রীষ্মের আগে এই প্রকল্পের কাজ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করা হয়েছে। বিষয়টি বন্দর কর্তৃপক্ষকেও জানানো হয়েছে। তাঁদের কোনও প্রস্তাব থাকলে তাও বিবেচনা করা হবে। এদিন পদ্মপুকুর জলপ্রকল্পে কাজ খতিয়ে দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন পুরমন্ত্রী। সেখানেই কেএমডিএ ও হাওড়া পুরনিগমের ইঞ্জিনিয়ারদের একটি বৈঠক করেন তিনি। সমস্ত কাজ দ্রুততার সঙ্গে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন পুরমন্ত্রী।

জনপ্রিয়

Back To Top