আজকালের প্রতিবেদন- কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে রাজ্যপাল–আচার্য জগদীপ ধনকড়ের নাম নেই। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে কে বা কারা আসছেন, তারও উল্লেখ নেই। সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন নিয়ে উচ্চপর্যায়ে একটি বৈঠক হয়। আমন্ত্রণপত্র বিলির কাজও এদিন থেকে শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে আমন্ত্রণপত্রটি পাঠাচ্ছেন রেজিস্ট্রার দেবাশিস দাস। এদিনের বৈঠক নিয়ে উপাচার্য সোনালি চক্রবর্তী ব্যানার্জি জানিয়েছেন, ‘‌এটি রুটিন বৈঠক। অনুষ্ঠানটি যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় তা নিয়েই আলোচনা হয়েছে।’‌ প্রসঙ্গত, এর আগে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি বলেছিলেন, সমাবর্তনে আচার্যকে থাকতেই হবে এমন কোনও বাধ্যবাধতকা নেই। আইনে তা বলাও নেই। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন রাজ্যপালকে ছাড়াই হবে। উচ্চশিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর, সাম্মানিক ডিগ্রি প্রাপকদের নামের তালিকা অনুমোদন করেন আচার্য। কিন্তু সমাবর্তনে তিনি নাও থাকতে পারেন। সাম্মানিক ডিগ্রি যে তাঁকেই দিতে হবে এমনটাও কোথাও বলা নেই। যেহেতু সমাবর্তনে তাঁর থাকা বাধ্যতামূলক নয়, তাই সাম্মানিক ডিগ্রি প্রাপকদের মানপত্রে উপাচার্যের সঙ্গে তাঁর স্বাক্ষর থাকে। এক্ষেত্রে কী হবে সে ব্যাপারে এখনই কোনও মন্তব্য করতে চায়নি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ইতিমধ্যেই তাঁর অনুপস্থিতিতে সেনেট বৈঠক হওয়া, সমাবর্তনের দিন ঠিক করা এবং সাম্মানিক ডিগ্রি কাকে দেওয়া হবে তা ঠিক করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন রাজ্যপাল। দপ্তরের পক্ষ থেকে তাঁকে যথাযথ উত্তর দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন ২৮ জানুয়ারি, নজরুল মঞ্চে হবে। সাম্মানিক ডিলিট দেওয়া হবে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক ব্যানার্জিকে। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top