Surajit Sengupta: মানুষ হিসেবে অতুলনীয় ছিলেন, সুরজিতের প্রয়াণে শোকস্তব্ধ প্রসূন, সুব্রতরা

আজকাল ওয়েবডেস্ক: ভারতের অন্যতম সেরা উইঙ্গারের প্রয়াণে শোকস্তব্ধ ময়দান।

ফুটবলার হিসেবে তো বটেই, মানুষ সুরজিৎকে মিস করবে তাঁর দীর্ঘদিনের সতীর্থরা। দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন, কিন্তু আশা ছিল ফিরে আসবেন। ময়দানের আরও এক নক্ষত্রপতনে শোকের ছায়া কলকাতা ফুটবল মহলে।

প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় - সুরজিৎ আমার প্রাণের বন্ধু ছিল। আমাকে গোপাল বলে ডাকত। ভাবতে পারছি না ও আর নেই। আমার সঙ্গে ভীষণই হৃদ্যতা ছিল। কিন্তু ওকে এইভাবে আমি দেখতে পারব না। ও ফুটবলার হিসেবে তুলনাহীন ছিল। ওর মতো বড় মানের উইঙ্গার ভারতে নেই। ওর পায়ে বল কথা বলত। দিনের পর দিন আমরা একসঙ্গে খেলেছি। ও ইস্টবেঙ্গল অধিনায়ক ছিল, আমি মোহনবাগানের। মানুষ হিসেবে বড় মাপের ছিল। বিশ্বমানের ফুটবলার ছিল। কিন্তু সঠিক মূল্যায়ন হল না। 

সুব্রত ভট্টাচার্য - সুরজিৎ আমাদের ছেড়ে চলে গেছে ভাবতে পারছি না। খুবই খারাপ লাগছে। এত বড় মাপের ফুটবলার ছিল। কিন্তু সঠিকভাবে ওকে কাজে লাগানো হল না। পরবর্তীতে কোনও ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত ছিল না। কেন একের পর এক ফুটবলার চলে যাচ্ছে সেটা আমাদের ভাবতে হবে। খেলা ছাড়ার পর ফুটবলারদের মানসিক দিকে কোনও সমস্যা হচ্ছে কিনা সেটা দেখতে হবে। 

গৌতম সরকার - আমার সঙ্গে প্রচুর স্মৃতি। আমরা এমন একজনকে হারালাম যার শূন্যস্থান জীবনে পূরণ হবে না। বিরল ব্যক্তিত্ব ছিল। একাধারে ফুটবলার। এই কৃতিত্ব আর কারও আছে কিনা জানি না। অমূল্য সম্পদ ছিল। আমাদের সম্পর্ক ৫২ বছরের। সেই খিদিরপুর থেকে। ১৩-১৪ বছর আমরা একটানা একসঙ্গে খেলেছি। ওর চলে যাওয়া মেনে নেওয়া যায় না। অপূরণীয় ক্ষতি। এই শূন্যতা পূরণ হবে না। 

সমরেশ চৌধুরী - বিরাট মাপের মানুষ। প্রত্যেকদিন ওর খবর রাখতাম। আমার সঙ্গে গভীর সম্পর্ক ছিল। ১৯৭৪ সালে আমার অধিনায়কত্বে ইস্টবেঙ্গলে এসেছিল। আমাকে ক্যাপ্টেন বলে ডাকত। আমি, শ্যামল ব্যানার্জি, রণজিৎ গুপ্ত এবং সুরজিৎ একসঙ্গে আড্ডা মারতাম। মাঠে এবং মাঠের বাইরে আমার সঙ্গে খুব ভাল বোঝাপড়া ছিল। ও গান, বাজনা ভালবাসত। মানুষ হিসেবে অসাধারণ ছিল।

বিদেশ বসু - সুরজিতের মতো মানুষ চলে গেল ভাবা যাচ্ছে না। রোজ মেডিক্যাল বুলেটিন দেখতাম। ওর চলে যাওয়া চরম আঘাত। আমি ন্যাশনাল এবং এশিয়ান গেমস খেলেছি সুরজিতের সঙ্গে। মানুষ হিসেবে অসাধারণ ছিল। এত ভাল মানুষ খুব কমই দেখা যায়। ভ্রাতৃত্বপূর্ণ ব্যবহার ছিল। যে ওর সঙ্গে মিশেছে কেউ ভুলতে পারবে না। 

ভাস্কর গাঙ্গুলি - ফুটবলার হিসেবে অসাধারণ ছিলই, খুব বড় মাপের মানুষ ছিল। সহকর্মীদের সঙ্গে কীভাবে মিশতে হয় জানত। সেটা সকলের শেখ উচিত। খুব তাড়াতাড়ি চলে গেল। ভাবতেই পারছি না। ময়দান এখন বড় মাপের ফুটবলার হারাল।

আকর্ষণীয় খবর