আজকালের প্রতিবেদন: ফের জ্বরে মৃত্যু হল তিনজনের। কলকাতা পুলিশের এক মহিলা কনস্টেবলের মৃত্যু হয় বাইপাশের ধারে এক বেসরকারি হাসপাতালে। হাওড়ায় এক গৃহবধূ এবং নৈহাটিতে এক যুবকের জ্বরে মৃত্যু হয়। 
মৃত কনস্টেবলের নাম রুণু বিশ্বাস (‌৩২)‌। তিনি আমহার্স্ট স্ট্রিট থানায় কর্মরত ছিলেন। বাগুইআটির অশ্বিনীনগরের উদয়নপল্লীর এই বাসিন্দা মাত্র ১১ দিন আগেই একটি কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। জানা গেছে, সন্তান জন্ম হওয়ার পরেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রবল জ্বর নিয়ে প্রথমে চিনারপার্কের এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা চলছিল। রক্ত পরীক্ষায় ডেঙ্গি ধরা পড়ে। পরে ২৯ অক্টোবর বাইপাসের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই বুধবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়। ডেঙ্গিতে শক সিনড্রোমের ফলে মাল্টি অর্গান ফেলিওর হয়ে মৃত্যু হয়েছে বলে উল্লেখ হাসপাতালের দেওয়া ডেথ সার্টিফিকেটে। 
হাওড়ার রামরাজাতলার ঠাকুর রামকৃষ্ণ লেনের গৃহবধূ কেয়া গোস্বামী (২৬) দিন সাতেক ধরে জ্বরে ভুগছিলেন। প্রথমে স্থানীয় নার্সিংহোমে চিকিৎসা চলছিল। অবস্থার অবনতি হলে সোমবার আন্দুলের একটি বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানেই এদিন ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়। ডেথ সার্টিফিকেটে মৃত্যুর কারণ হিসেবে ডেঙ্গি শক সিনড্রোমের উল্লেখ রয়েছে বলে দাবি পরিবারের। পুর কমিশনার বিজিন কৃষ্ণ জানান, বিভিন্ন আক্রান্ত এলাকায় বিশেষ দল পাঠানো হচ্ছে। রিপোর্ট পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ ভবানী দাস জানান, বিষয়টি খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। 
নৈহাটির গরিফায় জ্বরে মৃত্যু হয়েছে ২৭ বছরের এক যুবকের। মৃত যুবক কৃষ্ণগোপাল অধিকারী ২ অক্টোবর জ্বর নিয়ে নৈহাটির স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। রক্ত পরীক্ষায় তাঁর ডেঙ্গি ধরা পড়ে। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে কল্যাণী জওহরলাল নেহরু হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে মঙ্গলবার সন্ধেয় তাঁর মৃত্যু হয়। 
অন্যদিকে, ডেঙ্গি প্রতিরোধ, রাস্তা, ফুটপাথ সারানো, পরিস্রুত পানীয় জল সরবরাহ–সহ বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে বিধাননগর পুরভবনে স্মারকলিপি জমা দেয় এসইউসিআই–এর বিধাননগর লোকাল কমিটি। সংগঠনের পক্ষে সম্পাদক স্নেহাশিস দাস জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরে বিধাননগরের বিভিন্ন ব্লকে রাস্তা সারানো হয়নি। অনেক জায়গা থেকে ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হওয়ার খবর আসছে। কেষ্টপুর এলাকায় খাল ও জঙ্গল পরিষ্কার করা প্রয়োজন। মেয়র কৃষ্ণা চক্রবর্তীর কাছে তাঁদের আবেদন, তিনি যেন এই সমস্যাগুলির দ্রুত সমাধানে ব্যবস্থা নেন।‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top