‌আজকালের প্রতিবেদন: একদিকে বিশ্ব উষ্ণায়ন, অন্যদিকে মাত্রাতিরিক্ত দূষণ!‌ এই ‘‌সাঁড়াশি’‌ চাপে বিপদের আশঙ্কা দিন দিন বাড়ছেই। এই সঙ্কট থেকে বাঁচার উপায়ই বা কী?‌ সমাধান কোন পথে?‌ উদ্বিগ্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও। মঙ্গলবার নবান্নে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ নিয়ে মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটিও গড়ে দিলেন তিনি। রাজ্যের বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার মধ্যে সাম্প্রতিক বিশ্ব জুড়ে এই সঙ্কটের প্রসঙ্গও ওঠে। মমতা বলেন, ‘‌উপায় তো বের করতেই হবে। না হলে কী করে এর সমাধান হবে।’‌ 
প্রসঙ্গত, সোমবারই রাষ্ট্রপুঞ্জের ‘‌ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ’‌ (‌আইপিসিসি)‌–‌এর এক রিপোর্টে বিশ্ব জুড়ে উষ্ণায়ন সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে আশঙ্কা করে রিপোর্টে বলা হয়েছে, অদূর ভবিষ্যতে শোচনীয় পরিস্থিতির শিকার হবে বিভিন্ন দেশ। প্রভাব পড়ার আশঙ্কা কলকাতার মতো মেগাসিটিগুলির। তীব্র গরমে ম্যালেরিয়া–‌ডেঙ্গির মতো রোগের প্রাদুর্ভাব আরও বাড়বে। কলকাতার গড় তাপমাত্রাও বেড়েছে ১.‌২ ডিগ্রি সেলসিয়াস গত ১৫০ বছরে। একইভাবে দিল্লি, মুম্বই ও চেন্নাইয়ের তাপমাত্রাও বেড়েছে। এই অবস্থায় পরিস্থিতির বদল করতে হলে বিজ্ঞানীদের পরামর্শ কৃষি, শিল্প, শক্তিনীতি–‌সহ মানুষের জীবন‌যাপনেও রাশ টানতে হবে। এদিন নবান্নে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সব কথা মাথায় রেখেই মুখ্যমন্ত্রী 
ওই বিশেষজ্ঞ কমিটির গড়ার পরামর্শ দেন। সিদ্ধান্ত হয়েছে মুখ্য সচিব মলয় দে–‌র নেতৃত্বে এই কমিটি তৈরি হবে। সেখানে পরিবেশবিদ ছাড়াও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সচিব, বনবিভাগ, ভূমি, সেচ, মৎস্য, নগরোন্নয়ন ও বিদ্যুৎ দপ্তরের সচিবরা থাকবেন। দূষণ ঠেকাতে প্রয়োজনে আরও বেশি বৃক্ষরোপণ, গাছ না–‌কাটা অর্থাৎ যা যা ব্যবস্থা নেওয়ার দরকার, তার পরামর্শ দেবে কমিটি। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top