অভিজিৎ বসাক:  শীতের মজা আরও বাড়াতে নিউ টাউনে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে হিডকোখাওয়াদাওয়া, সংস্কৃতি চর্চা থেকে মেলা, সেরা দুর্গাপুজো কমিটিকে পুরস্কার দেওয়া— থাকছে সবই। 
ইকো পার্কে ২০ ডিসেম্বর থেকে হবে খাদ্য অলিম্পিক। চলবে ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। ইকো পার্কে বাইরে থেকে খাবার আনা নিষিদ্ধ। তবে সেখানে বড়দিন, ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম দিন মানুষের ভিড় ভেঙে পড়ে। সেখানে বেশ কয়েকটি খাবারের দোকান রয়েছে। এত মানুষের ভিড় হয় দোকানদারেরা তাঁদের খাবার দিয়ে কুলিয়ে উঠতে পারেন না। এই সমস্যা সামলাতে ইকো পার্কে খোলা হচ্ছে খাবারের ৩টি নতুন দোকান। একটি সপ্তম আশ্চর্যের সামনে, দ্বিতীয়টি ট্রেন স্টেশনের সামনে এবং তৃতীয়টি আইফেল টাওয়ারের সামনে। এর পাশাপাশি সেখানে কলকাতার নামী কয়েকটি খাদ্যবিক্রেতা সংস্থাও খাবারের পসরা নিয়ে হাজির হবে। খাদ্য অলিম্পিক হবে এই সব খাবারের দোকান নিয়েই। যে দোকান সবথেকে বেশি জনপ্রিয় তাদের পুরস্কার দেওয়া হবে। জনপ্রিয়তা জানার মাপকাঠি হল বিক্রিবাটার পরিমাণ। যে দোকান সবথেকে বেশি খাবার বিক্রি করতে পারবে, তাদের পুরস্কৃত করা হবে। ‘‌ক্যাফে একান্তে’ হবে নানা অনুষ্ঠান। ইকো পার্কে মানুষ যাতে বাইরের খাবার না আনেন, ফুড কোর্ট থেকে যাতে মানুষ খাবার কিনে খান, তাই এই উদ্যোগ। বাইরের খাবার নিয়ে যেতে আপত্তি কোথায়?‌ ইকো পার্ক পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন রাখতে এই ব্যবস্থা নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। সেখানকার ফুড স্টলে বিভিন্ন রকমের খাবার থাকবে। ইকো পার্কে ২৪ এবং ২৫ ডিসেম্বর হবে ‘‌ক্রিসমাস কার্নিভাল’‌। থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিশুদের জন্য বিভিন্ন রকম খেলার আসর।
নিউ টাউন মেলা শুরু হচ্ছে ২৪ ডিসেম্বর থেকে। চলবে ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। নিউ টাউন মেলা মাঠে বসবে সে আসর। থাকবে নাচ, গান, আলোচনাসভা–সহ বিভিন্ন রকম অনুষ্ঠান। রকমারি খাবারের দোকান। নিউ টাউনের আবাসনগুলির মধ্যে অনেক জায়গায় দুর্গাপুজোর আয়োজন করা হয়। নিউ টাউন মেলায় আবাসনের সেরা পুজোগুলিকে পুরস্কৃত করা হবে। নিউ টাউন মেলার সঙ্গে শুর হবে নিউ টাউন বইমেলাও। এবার এই বইমেলার ষষ্ঠ বছর।
ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম দিনে ইকো পার্কে থাকছে অনুষ্ঠান। জলের ধারে হবে সেটি। আপাতত এমনই পরিকল্পনা হিডকোর। থাকবে সবরকম নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top