দীপঙ্কর নন্দী: ‘‌আমি মানুষের পদবি জানতে চাই না। আমার গাড়ির সারথির পদবিও আমি জানি না। এমনকী অভিষেকের স্ত্রীর পদবিও আমি জিজ্ঞাসা করি না। আমি চিনি মানুষকে। আমি বুঝি মানুষ।’‌ 
বৃহস্পতিবার রানি রাসমণি অ্যাভিনিউতে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের অবস্থানে এ কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিনি বলেন, ‘‌এখানে সবাইকে নিয়ে চলতে হয়। ভালবাসতে হয়। সেই জায়গা থেকে কেউ যদি সরে যায়, তাহলে আমি দুঃখ পাই। ‌অবস্থানমঞ্চে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা এসে গান গাইছে, কবিতা বলছে, কেউ আঁকছে, কেউ বক্তৃতা দিচ্ছে। তারা এ সবের মধ্যে দিয়েই বলে দিচ্ছে, বাংলা কী চায়। বাংলা কী চায় না।’‌ 
এদিন প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর গান শুনে মমতা ভূয়সী প্রশংসা করলেন। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের গান শুনে জানালেন অভিনন্দন। মমতা বললেন, ‘‌নবান্ন, তৃণমূল ভবন ও কালীঘাটের বাড়িতে অ্যাকুয়ারিয়াম আছে। যখন নবান্নতে আমার ঘরে ঢুকি তখন মাছগুলোকে আমি খেতে দিই। ফেরার সময়ও খাবার দিয়ে আসি। তারা তো নানারকম, সবাই একসঙ্গে থাকে। আমি চাই, এখানেও সবাই একসঙ্গে থাকতে। এটাই ঐক্য। বাংলার সংস্কৃতি ও কৃষ্টির সঙ্গে অন্য রাজ্যের তুলনা হয় না। নানা রকমের সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। নানা ধরনের বাদ্যযন্ত্র থাকে। চেতনা, আবেগ থাকে। এটাই বাংলার মহত্ত্ব। আন্দোলনের সঙ্গে এ সব মিশে থাকে। এমন রাজ্য কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি/‌সকল রাজ্যের সেরা বঙ্গভূমি।’‌
মমতার লেখা ও সুর দেওয়া বেশ কয়েকটি গান গেয়ে শোনালেন ইন্দ্রনীল সেন। দোলা সেনও গান করেন। দুপুর থেকে অবস্থান শুরু হয়। বিকেলের পর থেকে রানি রাসমণি অ্যাভিনিউতে ভিড় বাড়তে থাকে। যাদবপুরের কিছু ছাত্র এনআরসি, ক্যা–‌র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে কালো বেলুন এনেছিলেন। মঞ্চের বিভিন্ন কোনায় এই বেলুন রেখে দেওয়া হয়। বেলুনের নীচে লাগিয়ে দেওয়া হয় এনআরসি ও ক্যা–বিরোধী পোস্টার। পোড়ামাটির প্লেটে লিখে নিয়ে আসেন ‘‌নো এনআরসি, নো ক্যা’‌। মমতা আসেন সন্ধে ৬টার কিছু আগে। তার আগে কয়েকজন বক্তব্যও পেশ করেন। গান করেন। কেউ কেউ কবিতাও পাঠ করেন। স্লোগান ওঠে। এনআরসি–‌র ওপর মমতার লেখা গানটিও বাজানো হয়। ‌মমতা যখন এসে পৌঁছন তখন ধর্মতলার বহু মানুষ তাঁকে দেখতে আসেন। তাঁরাও মাঝেমধ্যে এনআরসি, ক্যা–‌র বিরুদ্ধে স্লোগান দেন। অনেককেই বলতে শোনা যায়, আপনার আন্দোলনের পাশে আমরা আছি। আপনি সঠিক প্রতিবাদ করছেন। কেউ কেউ বলেন, আপনিই প্রথম প্রতিবাদ করেছেন, তারপর অন্য রাজ্য থেকে এনআরসি, ক্যা–‌র বিরুদ্ধে আওয়াজ ওঠে। শুক্র, শনি ও রবিবার ছাত্রদের এই অবস্থান চলবে। সোমবার থেকে তৃণমূলের মহিলা কংগ্রেস এই অবস্থান শুরু করবে। তারপর তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠন তিনদিন অবস্থানের দায়িত্ব নেবে। এরপরই ২৭ থেকে ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত ছাত্রদের কর্মশালা হবে নেতাজি ইনডোরে। এই কর্মশালায় থাকবেন মুখ্যমন্ত্রী। আবার ছাত্ররা অবস্থানে বসবেন।‌‌

 

রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়ের ধর্নামঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বৃহস্পতিবার। ছবি: কুমার রায়

জনপ্রিয়

Back To Top