বিভাস ভট্টাচার্য: টাকা দিলেই মিলে যাবে হাসপাতালের শয্যা। মিলবে চিকিৎসার সুব্যবস্থা ও অন্যান্য সাহায্য। সরকারি আধিকারিক সেজে এভাবেই প্রতারণা চালাচ্ছিল এক ব্যক্তি। অভিযোগ পেয়েই তদন্ত শুরু করে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ এবং মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেপ্তার করা হয় অভিযুক্তকে। ধৃতের নাম শেখ নাসিরুদ্দিন বলে জানিয়েছে পুলিশ। অভিযুক্তর বিরুদ্ধে পোস্তা থানায় বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। কখনও অ্যাম্বুলেন্সে রোগী পৌঁছে দিতে অতিরিক্ত টাকা দাবি, আবার কখনও করোনার প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহের নামে প্রতারনা। অতিমারীর সুযোগকে কাজে লাগিয়ে মুনাফা লুটতে ব্যস্ত একশ্রেণীর অসাধু ব্যক্তিরা। নাসিরের বিরুদ্ধে পোস্তা থানায় পবনকুমার শর্মা নামে এক ব্যক্তি অভিযোগ জানিয়ে বলেন, অভিযুক্ত নিজেকে সরকারি আধিকারিক পরিচয় দিয়ে একের পর এক ব্যক্তিকে ফোন করে বলছে, সে হাসপাতালে করোনা রোগীকে ভর্তি করে দেওয়া ছাড়াও দরকারে চিকিৎসার ব্যবস্থা ও কোভিড সংক্রান্ত অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করে দেবে। বিনিময়ে তাকে দিতে হবে মোটা টাকা। পবনের অভিযোগ, তাকেও নাসির এই কথা বলেছে। গত ৩০ এপ্রিল অভিযোগ দায়ের করা হয়। এরপরেই যে ফোন নম্বর থেকে নাসির ফোন করেছিল সেই নম্বরটি ধরে তদন্ত শুরু করে কলকাতা পুলিশ। অবশেষে মঙ্গলবার দুপুরে পূজালি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা বিভাগ। অভিযুক্ত কতদিন ধরে এবং এখনও কতজনকে এইভাবে প্রতারণা করেছে তা জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা।

জনপ্রিয়

Back To Top