আজকালের প্রতিবেদন- যে ভাবে ও ভাষায় বর্ধমান এবং কোচবিহারের পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলেছেন রাজ্যপাল, তাতে ব্যথিত ও অসম্মানিত রাজ্যের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা। বুধবার উপাচার্য পরিষদের পক্ষ থেকে এ নিয়ে একটি প্রেস বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। তাতে পরিষদের সম্পাদক এবং উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুবীরেশ ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিমাই সাহা এবং কোচবিহারের পঞ্চানন বর্মা–‌র উপাচার্য দেবকুমার মুখার্জির সঙ্গে রাজ্যপাল তথা আচার্য জগদীপ ধনকড় ফোনে কথা বলেন। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে সহ–উপাচার্য নিয়োগকে কেন্দ্র করে যেভাবে তিনি কথা বলেন, তাতে বিস্মিত হন নিমাইবাবু। কয়েক মাস আগে পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনকে কেন্দ্র করে বিতর্ক দেখা দিয়েছিল। দেবকুমারবাবুকে শো–‌কজ করেছিলেন রাজ্যপাল। এই দুই উপাচার্য পরিষদকে বিষয়টি জানিয়েছেন বলে ওই বিবৃতিতে জানিয়েছেন সুবীরেশবাবু। এতে উপাচার্যদের সম্মানহানি হয়েছে বলেই মনে করছে পরিষদ। কিন্তু তঁারা যা করেছেন, তা ২০১৯ সালে বিশ্ববিদ্যালয়–‌সংক্রান্ত আইনের যে–‌বিধি পাশ হয়েছিল, তা মেনেই করেছেন। এই অবস্থায় উপাচার্য পরিষদের বক্তব্য, করোনা এবং আমফানের কারণে কঠিন পরিস্থিতিতে রয়েছে রাজ্য। কবে কলেজ–বিশ্ববিদ্যালয় খুলবে, পরীক্ষা কবে হবে, কীভাবে হবে, পাঠ্যক্রম কীভাবে শেষ করা হবে— এসব নিয়েই তাঁরা চিন্তিত। এই অবস্থায় সকলের এক হয়ে কাজ করা উচিত।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top