আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কেরলই একমাত্র সবেধননীলমনি এখন। এই অস্তিত্ব সংকট নিয়ে সোমবার কলকাতায় শুরু হল সিপিএমের রাজ্য সম্মেলন। সম্মেলনের মূল এজেন্ডা কংগ্রেস সখ্য নিয়ে এগিয়ে যাওয়া নাকি একক লাইন।ত্রিপুরার পরাজয় নিয়েও যে আলোচনা হবে তাতে সন্দেহ নেই। এই গেরুয়া ঝড়ে কিভাবে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা হবে তাও আলোচনায় থাকছে। বিজেপির আগ্রাসী মনোভাব সিপিএম নেতাদের ভাবিয়ে তুলেছে বলে জানা গিয়েছে।এখন কোন পথে হাঁটা হবে তা নিয়ে সকাল থেকেই বৈঠক শুরু হয়েছে প্রমোদ দাশগুপ্ত ভবনে। 
বিজেপিকে ঠেকাতে কংগ্রেসের সঙ্গে বোঝাপড়ার ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই কারাত ইয়েচুরির মধ্যে ব্যবধান তৈরি হয়েছে। রাজ্য সম্মেলনে যে খসড়া পেশ করা হবে তাতে নাকি কংগ্রেসের সঙ্গে বোঝাপড়ার প্রতিবেদনে বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হবে বলে জানা গিয়েছে।সর্বসম্মতিক্রমে তা গৃহীত হবে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।কারণ পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেসের সঙ্গে বোঝাপড়াতেই যে সিপিএমের ভরাডুবি হয়েছিল তাতে কোনও সন্দেহ নেই। কলকাতা জেলা কমিটির নির্বাচনে এই নিয়ে প্রবল বিরোধিতা দেখা গিয়েছিল। তার জেরেই একঝাঁক নতুন মুখ জায়গা করে নিয়েছে সিপিএমের কলকাতা জেলা কমিটিতে। কিন্তু ত্রিপুরার হারের পর স্ট্যাটেজি কী হবে তা নিয়ে জল্পনা এখন তুঙ্গে।

অন্যদিকে উত্তর পূর্ব ভারতে কংগ্রেসের নির্বাচনী ফলাফল খুব খারাপ হয়েছে। তাই সর্বভারতীয় রাজনীতিতে কংগ্রেসের সঙ্গে সখ্য চাইছেন না অনেকে। তা নিয়ে আলোচনায় জলঘোলা হতে চলেছে বলে খবর। সামনেই পঞ্চায়েত নির্বাচন। আর ২০১৯ সালে রয়েছে লোকসভা নির্বাচন। তাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে কোন স্ট্র্যাটেজি নিয়ে আগামীদিনে চলবে সিপিএম।
 

জনপ্রিয়

Back To Top