আজকালের প্রতিবেদন‌‌‌‌‌‌: টিউশন পড়তে গিয়ে অপহৃত হয়েছে ছেলে, পুলিশকে জানিয়েছিলেন ত্রিপুরার বাসিন্দা উজ্জ্বল চক্রবর্তী। তাঁর অভিযোগ ছিল, তিনি নিজে গৃহশিক্ষকের বাড়িতে দিয়ে এসেছিলেন ছেলে উদয়নকে। সেখান থেকে ছেলে আর বাড়ি ফেরেনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জানা গেল, ছেলেকে গৃহশিক্ষকের বাড়িতে আদৌ দিতে যাননি বাবা। বাবার মার খেয়ে বাড়ি থেকেই পালিয়েছিল ছেলে। সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে দেখা করার ইচ্ছে নিয়ে পালিয়ে ত্রিপুরা থেকে চলে এসেছিল কলকাতায়। শিয়ালদা থেকে উদ্ধার করে বাড়ি পাঠানো হয়েছে উদয়নকে। ত্রিপুরার আগরতলার ১০ রামনগর রোডের বাসিন্দা উজ্জ্বল চক্রবর্তীর ছেলে বছর চোদ্দোর উদয়নের ইচ্ছে ক্রিকেটার হওয়ার। কিন্তু বাবার ইচ্ছে পড়াশোনা করুক ছেলে। কিছুদিন আগেই উজ্জ্বল চক্রবর্তী ত্রিপুরা থানায় অভিযোগ করেন, টিউশন পড়তে গিয়ে অপহৃত হয়েছে ছেলে। সেখানকার পুলিশ গৃহশিক্ষকের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারে, সেদিন পড়তে যায়নি উদয়ন। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পুলিশ জানতে পারে, সেদিন বাবা এবং ছেলে কাউকেই দেখা যায়নি গৃহশিক্ষকের বাড়ির কাছে। অন্য দিকে এই খবর পৌঁছোয় ত্রিপুরা হ্যাম, হ্যাম রেডিওর ওয়েস্ট বেঙ্গল রেডিও ক্লাব ও পশ্চিমবঙ্গের রেল পুলিশের কাছে। সোমবার শিয়ালদা আরপিএফ উদয়নকে খুঁজে পায়। মঙ্গলবার সকালে উদয়নের সঙ্গে দেখা করেন রেডিও ক্লাবের সম্পাদক অম্বরীষ নাগ বিশ্বাস। আরপিএফ ও তিনি উদয়নের সঙ্গে কথা বলেন। কাউন্সেলিং করেন তাঁরা। উদয়ন জানায়, সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে দেখা করতে কলকাতায় পালিয়ে এসেছে সে। সেখানে তাকে বাবা ক্রিকেট খেলতে দেন না। পড়াশোনার জন্য মারধর করেন। সেজন্যই বাড়ি থেকে পালিয়ে এ রাজ্যে চলে আসে সে। তবে শেষ পর্যন্ত সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে দেখা করানোর আশ্বাস দিয়েই বাড়ি পাঠানো হয়েছে তাকে।‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top