আজকালের প্রতিবেদন- কলকাতার একটি বহুতলের তিনতলার মালিক, বাসিন্দা এবং একটি সংস্থার ভাড়াটিয়াদের আজ মঙ্গলবার সিআইডি–র সদর দপ্তর ভবানী ভবনে কাগজপত্র নিয়ে সশরীরে দেখা করার জন্য নোটিস দিল সিআইডি। টালিগঞ্জ থানা এলাকার ৬/‌১ শরৎ চ্যাটার্জি অ্যাভিনিউয়ের বাড়িটিতে এ ব্যাপারে নোটিস দেওয়া হয়েছে। সিআইডি জানায়, ১ ফেব্রুয়ারি পূর্ব মেদিনীপুরের দাসপুর থানার একটি মামলার প্রেক্ষিতেই এই নোটিস। সিআইডি ওই বাড়িতে গিয়ে কাউকে পায়নি। তালাবন্ধ অবস্থায় রয়েছে। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টে প্রাক্তন আইপিএস ভারতী ঘোষের স্বামী মোতামারি আপ্পানা বিররাজু বিচারপতি দেবাংশু বসাকের এজলাসে সিবিআই তদন্ত চেয়ে মামলা করেন। রাতে আইনজীবীকে নিয়ে সি আই ডি ও রাজ্য পুলিসের ৭ জন কর্তার বিরুদ্ধে নেতাজিনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। হাইকোর্টে তাঁর আইনজীবী শীর্ষেন্দু সিংহরায়। জানা গেছে, পুলিসের অতিসক্রিয়তা কেন, তার তদন্তের জন্যই সিবিআই তদন্তের আবেদন। সিবিআই অথবা অন্য কোনও নিরপেক্ষ সংস্থাকে দিয়ে তদন্ত করানোর আবেদন জানানো হয়েছে। যে রাজ্যের পুলিসের বিরুদ্ধে তদন্ত, সেই রাজ্যের পুলিসই কী করে, বলা হয়েছে আবেদনে। এদিকে, মাদুরদহের ভেঙ্কট গিরি আবাসন থেকে রাজমঙ্গল সিং (‌৬০)‌ নামে এক কেয়ারটেকারকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি। তার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট কয়েকটি ধারায় মামলা শুরু হয়েছে। সোমবার ঘাটাল আদালতে এসিজেএম রিনা গোলদারের এজলাসে তাঁকে তোলা হয়। ৬ দিনের সিআইডি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। 
সিআইডি–র ‌ডিএসপি মধুসূদন নাথ নোটিসে জানিয়েছেন, দাসপুর থানার যে মামলাটি শুরু হয়েছে, তার প্রেক্ষিতেই টালিগঞ্জের ওই বাড়িটির ওই তলের বাসিন্দাদের কাগজপত্র নিয়ে দেখা করা জরুরি।‌‌‌
ভারতী ঘোষ বিজেপিতে স্বাগত। রাজ্য দলের সভাপতি দিলীপ ঘোষ সোমবার বলেছেন, তিনি আমাদের দলে আসতে চাইলে আমরা তাঁকে নিতে পারি। তিনি বলেন, ‘‌ভারতী ঘোষ এখন পশ্চিমবঙ্গে নেই। শুনেছি, তিনি আমাদের দলের একজন কেন্দ্রীয় নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, কথাবার্তা চালাচ্ছেন। তবে কী নিয়ে কথা হচ্ছে, তা বলতে পারব না।’‌‌‌

৬/১ শরৎ চ্যাটার্জি অ্যাভিনিউয়ে ভারতী ঘোষের বাড়ির নিচে পুলিস। ছবি: বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top