আজকালের প্রতিবেদন: পোশাক নিয়ে নারীবিদ্বেষী ব্যানারকে ছি ছি করছে কলকাতা। ব্যানারের বক্তব্য পড়ে রাগে ফুঁসছেন পথচলতিরাও। ‘‌নারীদেহ প্রদর্শনকারী উত্তেজক পোশাকের উৎপাদন এবং বিপণন বন্ধ করতে হবে।’‌ কয়েক দিন আগে শ্যামবাজার পাঁচমাথার মোড়ের কাছে একটি অস্থায়ী প্রসাধন সামগ্রীর দোকানের সামনে লাগানো হয়েছে এই ব্যানার। বক্তব্যের নীচে নীলরঙে লেখা রয়েছে ‘বাঙালি মহিলা সমাজ’। সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র, মুক্তচিন্তার পীঠস্থান হিসেবে পরিচিত কলকাতার বুকে এহেন তালিবানি ফতোয়া ব্যানার দেখে রীতিমতো রুষ্ট লোকজন। ওই ব্যানারটির পাশেই লাগানো হয়েছে পাল্টা প্রতিবাদী ব্যানার। যেখানে লেখা, ‘মধ্যযুগীয় হাম্বা, পোশাক ধর্ষণের কারণ নয়।’‌ সামাজিক মাধ্যমে ব্যানারের ছবিটি নিয়ে অনেকে লিখেছেন, ‘উত্তেজক পোশাক কোনটি, আর কোনটি নয়, সেটা কে ঠিক করে দেবে?’‌
জোরালো প্রতিবাদের পাশাপাশি ‌‘বাঙালি মহিলা সমাজে’‌র ‘‌সভ্য’‌দের খোঁজও চলছে। বেশ কয়েকটি সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু কেউই ওই ব্যানারটির দায়িত্ব নিতে চাননি।
‘‌আমি সে–সময় থাকলে এই ব্যানার লাগাতে দিতাম না।’‌ বুধবার এ কথা বলেছেন ওই দোকানি। তাঁর কথায়, ‘‌এখন নিজে থেকে খুলতেও পারছি না। দেখি পুলিশ কী করে।’ তাঁর ধারণা, অনেক ভোরে বা গভীর রাতেই এই ব্যানার লাগানো হয়েছে। তারপর থেকেই ওই যুবক পড়েছেন মহা ঝামেলায়! কিছুদিন ধরেই‌ লোকজনের প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে জেরবার অবস্থা তাঁর। আক্ষেপের সঙ্গে জানালেন, কয়েকজন তরুণী দিনকয়েক আগে এসে তাঁকে মোক্ষম শাসিয়ে গেছেন। ওই তরুণীরা ভেবেছিলেন ব্যানারটি তিনিই লাগিয়েছেন। অনেক বুঝিয়ে আশ্বস্ত করতে পেরেছেন তাঁদের। 
সম্প্রতি ওই পোস্টারের বিরুদ্ধে শ্যামবাজার চত্বরে জমায়েতের ডাক দেন কয়েকজন তরুণ–তরুণী। তাঁেদর প্রশ্ন ছিল, ‘‌উত্তেজক’‌ পোশাকের জন্যই কী পুরুষের যৌনলালসা জাগে?‌ তাহলে দু’‌বছরের শিশুকন্যা বা আশি বছরের বৃদ্ধা ধর্ষিতা হন কেন? আর যৌনলালসা জাগলেই কি নারীকে ধর্ষণ করার অধিকার পাওয়া যায়?‌ এলাকাটি শ্যামপুকুর থানার অন্তর্গত হওয়ায় সেখানে গিয়ে তাঁরা জমায়েতের অনুমতিও নেন। এদিন‌ ব্যানারের বিষয়ে 
কী পদক্ষেপ করা হচ্ছে জানতে চাওয়া হলে 
শ্যামপুকুর থানার তরফে জানানো হয়, বিষয়টি দেখা হচ্ছে।
পথচলতিদের অনেকের মতে, অবিলম্বে ওই ঘৃণ্য ব্যানারটি খুলে ফেলে দেওয়া উচিত। আশপাশের দোকানদাররাও বিরক্ত। সিপিআই কাউন্সিলর করুণা সেনগুপ্ত বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে দেখছি। এই ব্যানার ভুল বার্তা ছড়াচ্ছে শহরের জনমানসে। ব্যবসায়ী সমিতির সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top