আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌অন্তর্দ্বন্দ্বে জেরবার রাজ্য বিজেপি। দলের বিভিন্ন মোর্চার কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের মধ্যে যে দ্বন্দ্ব চলছে, সেই ছবি প্রকাশ্যে এনে দিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সংগঠনের সম্পাদক অনুপম হাজরা। রবিবার নবমীর সকালে তাঁর একটি ফেসবুক পোস্টের পর গোটা বিষয়টা জলের মত পরিষ্কার রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কাছে। দলের নেতাদের উদ্দেশে হুঁশিয়ারিও দিয়ে ফেললেন বোলপুরের প্রাক্তন সংসদ। বললেন, এভাবে চলতে থাকলে আগামী বছর বাংলায় ক্ষমতায় নাও আসতে পারে বিজেপি। ফেসবুক পোস্টের শিরোনাম, ‘‌আমার বিজেপি পরিবারের বিশেষ কিছু কার্যকর্তা–নেতাদের উদ্দেশে’‌। অনুপম হাজরা লেখেন, ‘‌আমাদের কাছে একুশের লড়াইয়ের মূল লক্ষ্য, শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির রাজ্য অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গ জয় করে আমাদের প্রিয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিজিকে বিশেষ উপহার দেওয়া।’‌ তাঁর দাবি, ‌অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী হয়ে নেতারা ধরেই নিয়েছেন সামনের নির্বাচনে ক্ষমতায় আসছে বিজেপি। আর যার জেরে দলের ভেতর বাড়ছে অন্তর্দ্বন্দ্ব। এতে তৃণমূল স্তরের কর্মী–সমর্থকরা মনোবল হারাচ্ছেন।
পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘‌যাঁরা নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্ব–বিবাদ শুরু করে দিয়েছেন, সেই সব দ্বন্দ্ব–বিবাদ, ঝগড়া মিটিয়ে নিজেদের মধ্যে একতা বজায় রাখলেই ভাল। তাতে আমাদের বুথ–স্তর অব্দি কার্যকর্তারা তৃণমূলের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে লড়ার মনোবল পাবেন।’‌ 

 

উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ‘‌মনে রাখবেন, আমরা যদি এই লড়াইয়ে কোনওভাবে হেরে যাই, তাহলে তৃণমূলের অত্যাচার থেকে বাঁচার জন্য বাংলার বাইরে অন্য কোনও রাজ্যে আমাদের নতুন বাসস্থান খুঁজতে হবে আর সবথেকে দুরবস্থা হবে বুথ স্তরের নেতাকর্মীদের। যাঁরা হচ্ছেন এই লড়াইয়ে আমাদের প্রধান সৈনিক। যাঁরা নিজেদের প্রাণ দিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছেন সারাবছর।’‌ 

সম্প্রতি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং বিজেপির রাজ্য যুব মোর্চার সভাপতি ও সাংসদ সৌমিত্র খাঁ–এর মধ্যে দ্বন্দ্ব সামনে এসেছে। গত শুক্রবার দিলীপ ঘোষ ঘোষণা করেছিলেন, ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার সব জেলা সভাপতি ও কমিটি বাতিল করা হয়েছে। পরবর্তী ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত বিজেপির জেলা সভাপতি দলীয় মোর্চার দায়িত্ব সামলাবেন। ক্ষুব্ধ সৌমিত্র খাঁ প্রকাশ্যে জানান, দলের এই সিদ্ধান্ত সম্পর্কে তিনি কিছুই জানতেন না। এই ঘটনার পরই অষ্টমীর দিন বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগ করে বিজেপির হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ত্যাগ করেন সৌমিত্র খাঁ। কিন্তু কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ফের সিদ্ধান্ত বদল। ফের গ্রুপে যুক্ত হয়ে তিনি বলেন, ‘‌তোমাদের ছেড়ে থাকা সম্ভব নয়। তাই আবার ফিরে এলাম। তৃণমূলকে হটানোর জন্য সবকিছু ত্যাগ করতে রাজি আছি।’‌ আবার একটি ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘‌মান অভিমান তো হয়েইছিল, কিন্তু কোনও ব্যক্তির জন্য দল ছাড়ব না। দল হচ্ছে আমার কাছে পরিবার।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top