আজকালের প্রতিবেদন: বুধবারের ভয়াল ঝড়ে তছনছ হয়ে গিয়েছে কলকাতা শহর। কলকাতার দুটি বড় স্টেডিয়ামের অবস্থা দু’‌রকম। যুবভারতী স্টেডিয়ামের বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আমফান অবশ্য ইডেনের খুব বেশি ক্ষতি করতে পারেনি। শুক্রবার সল্টলেক স্টেডিয়াম পরিদর্শনে যান ক্রীড়া ও যুবকল্যাণমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। অন্যদিকে, ইডেন ও সংলগ্ন ময়দানের ক্ষয়ক্ষতি খতিয়ে দেখেন সিএবি সভাপতি অভিষেক ডালমিয়া ও যুগ্মসচিব দেবব্রত দাস।
যুবভারতীর ভিতরের প্র্যাকটিস মাঠের একটা বাতিস্তম্ভ উপড়ে গিয়েছে। আরেকটি হেলে গিয়েছে। ভিভিআইপি বক্সের ওপরের দর্শকাসনের ছাউনি উড়ে গিয়েছে। প্রেসবক্সের কাচ ভেঙে গিয়েছে। গ্যালারির বাকেট চেয়ারও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অরূপ বলেন, ‘সব দেখে গেলাম। ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে সম্পূর্ণ হিসেবনিকেশ করতে হবে। যত দ্রুত সম্ভব কাজ শুরু হবে।’‌‌‌‌
ইডেনে ‘‌কে’‌ ব্লকের কর্পোরেট বক্সের কাচ ভেঙেছে। ‘‌জি’‌ এবং ‘‌এইচ’‌ ব্লকের ছাউনির কিছুটা অংশ উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া ছাড়া মারাত্মক কোনও ক্ষতি হয়নি। বাইরের দিকে ক্ষতি বলতে ১৩ নম্বর গেটের কাছে একটি গাছ পড়ে পাঁচিল ভেঙেছে। অভিষেক বলেন, ‘‌আমফানের দাপটে গোটা রাজ্যে যেভাবে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তুলনায় সিএবি অনেকটাই রক্ষা পেয়েছে। পুরোটাই ঘুরে দেখেছি। ক্ষতিগ্রস্ত অংশগুলো দ্রুত মেরামত করে ফেলা হবে। পাশাপাশি দর্শকদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে আকাশবাণীর পিছন দিকে থাকা ম্যানুয়াল স্কোরবোর্ডের অংশটা একবার পরখ করিয়ে নেব।’‌
রাজস্থান ক্লাব তাঁবুতে গাছ পড়ে ক্যান্টিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কাস্টমস ক্লাব তাঁবুতে মাঠকর্মীদের থাকার ঘর ভেঙে গিয়েছে। টাউন ক্লাবের নেট ঘেরা একটা অংশ এবং একটা প্র‌্যাকটিস উইকেটের ক্ষতি হয়েছে। মেসারার্স ক্লাবের প্রবেশ গেট ও নেট, গ্রিয়ার তাঁবুর নেট ভেঙে গিয়েছে। বঙ্গবাসী ও হাওড়া ইউনিয়ন, ভবানীপুর তাঁবুর ক্ষতি হয়েছে। প্রত্যেক ক্লাব তাঁবুতে থাকা মাঠকর্মীদের জন্য এদিন পানীয় জলের জার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে রাজস্থান ক্লাবের তরফে।

জনপ্রিয়

Back To Top