আজকালের প্রতিবেদন: নতুন সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের সঙ্গে এনপিআর, এনআরসি নিয়ে আবার কেন্দ্রের মোদি সরকারের কড়া সমালোচনা করলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। বুধবার এ সম্পর্কে কলকাতায় একটি অনুষ্ঠানের পর অমর্ত্যবাবু বলেন, ‘‌যা হচ্ছে, তা অসাংবিধানিক। নাগরিক অধিকার খর্ব হচ্ছে। মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারও এর সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে।’‌ এর পরেই তাঁর মন্তব্য, ‘‌আমার বাবা–‌মায়েরও সার্টিফিকেট চাইলে কোথা থেকে দেব?‌’‌ 
এদিন কলকাতায় এসে সকাল এবং সন্ধেয় দুটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন অমর্ত্যবাবু। সকালে শিশির মঞ্চে ‘‌প্রাথমিক শিক্ষায় শিক্ষকদের ভূমিকা’‌ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন। পরে সন্ধ্যায় প্রতীচী ইনস্টিটিউটের পক্ষে আদিবাসীদের নিয়ে একটি সমীক্ষা রিপোর্ট আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেন তিনি এশিয়াটিক সোসাইটির হলে। দ্য এশিয়াটিক সোসাইটি এবং প্রতীচী ইনস্টিটিউটের যৌথ গবেষণায় ‘‌লিভিং ওয়ার্ল্ড অফ দি আদিবাসিজ অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল:‌ অ্যান এথনোগ্রাফিক এক্সপ্লোরেশন’‌ নামে ওই সমীক্ষা রিপোর্টে মূলত পশ্চিমবঙ্গের আদিবাসীদের অবস্থান নিয়ে তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। কেন্দ্রে মোদি সরকারের বিভিন্ন কাজকর্মের বিরুদ্ধে এর আগেও সমালোচনা করেছেন বিশ্বজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্যবাবু। পাল্টা তাঁকে কু–‌ভাষায় আক্রমণ করতে ছাড়েনি গেরুয়া শিবিরের প্রতিনিধিরা। দেশের সাম্প্রতিক ক্যা, এনপিআর, এনআরসি প্রসঙ্গে কোনও রকম রাখঢাক না রেখেই এদিনও সমালোচনায় বিদ্ধ করেছেন বিজেপি‌–‌কে। তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, ভারতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট আসছেন তাই গুজরাটে বস্তিবাসীদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে। আবার অর্থনীতির অগ্রগতিতেও ভারতকে প্রথমদিকে রাখা হচ্ছে। এ সম্পর্কে আপনার মত কী?‌ জবাবে অমর্ত্যবাবু বলেন, ‘‌এটা চিন্তার বিষয়। রাস্তার পাশে যারা থাকে, তাদের উৎখাত করা হচ্ছে। আমাদের দেশকে অর্থনীতিতে বড় করে দেখানো হচ্ছে। কিন্তু, বাংলাদেশ বহুক্ষেত্রে এখন এগিয়ে রয়েছে। তাছাড়া লোকসংখ্যাও একটা বড় সমস্যা আমাদের দেশে।’‌ পশ্চিমবঙ্গের আদিবাসীদের সম্পর্কে প্রতীচী ও দ্য এশিয়াটিক সোসাইটির সমীক্ষা রিপোর্টটি এদিন প্রকাশ করা হয় অমর্ত্যবাবুর হাত দিয়ে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এশিয়াটিক সোসাইটির সভাপতি ঈশা মহম্মদ, সাধারণ সম্পাদক সত্যব্রত চক্রবর্তী, প্রতীচীর ডিরেক্টর মানবী মজুমদার–‌সহ কুমার রানা, সুজিতকুমার দাস প্রমুখ।
 

জনপ্রিয়

Back To Top