তৃণমূল মুখপত্রে উত্তর সম্পাদকীয় লিখলেন অনিল বিশ্বাস কন্যা অজন্তা!

শ্রাবণী গুপ্ত:‌ নিঃসন্দেহে চমক। সদ্যই দৈনিক হিসেবে প্রকাশিত হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপত্র। শাসকদলের এই পত্রিকাতেই এদিন একটি উত্তর সম্পাদকীয়। যাকে ঘিরে আপাতত উত্তাল বঙ্গ রাজনীতি। কারণ এই উত্তর সম্পাদকীয় যিনি লিখেছেন তাঁর পরিচয়। তিনি আর কেউ নন, প্রয়াত সিপিএম রাজ্য সম্পাদক অনিল বিশ্বাসের কন্যা অজন্তা বিশ্বাস। 
             অজন্তা অবশ্য সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে সেভাবে যুক্ত নন। তিনি রবীন্দ্রভারতীর ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। সেই পরিচয়েই এই উত্তর সম্পাদকীয় তিনি লিখেছেন। যার শিরোনাম, ‘‌বঙ্গ রাজনীতিতে নারীশক্তি’‌। যেখানে বাসন্তী দেবী থেকে মমতা ব্যানার্জি, সকলের নাম উচ্চারিত হয়েছে একসঙ্গে। ‘‌প্রাক–স্বাধীনতা পর্ব থেকে সাম্প্রতিককালের ইতিহাসের চালচিত্রে বাঙালি মহিলাদের অবদান’‌ বিশ্লেষণ করেছেন অজন্তা। দুই কিস্তির এই লেখার প্রথম পর্ব প্রকাশিত হয়েছে আজ। আগামীকাল দ্বিতীয় পর্ব। প্রত্যাশিতভাবেই অজন্তার পরিচয় পর্বে অনিল বিশ্বাসের কোনও উল্লেখ নেই। ইতিহাসের একজন গবেষক, অধ্যাপক  হিসেবেই এই লেখা লিখেছেন অজন্তা। 
তিনি লিখেছেন, বাংলার মহিলারা ‘‌শুধুমাত্র শিক্ষাক্ষেত্রকেই তাঁরা উজ্জ্বল করেননি। দশের ও দেশের স্বার্থে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন রাজনীতির অলিন্দেও। বারংবার নিজেদের দৃঢ়তার দ্বারাই প্রমাণ করেছেন নিজেদের অসামান্য যোগ্যতা....’‌।
প্রথম পর্বে বাসন্তী দেবী, সরোজিনী নাইডু থেকে লীলাবতী মিত্র, কুমুদিনী মিত্র হয়ে স্বাধীনতা সংগ্রাম পর্বে পর্দার অন্তরালে থেকেও যুক্ত থাকা বহু মহিলার কথা তুলে ধরেছেন অজন্তা। সূত্রের খবর, দ্বিতীয় পর্বে স্বাধীনতা পরবর্তী ভারতীয় রাজনীতির ক্ষেত্রে বাঙালি মহিলাদের অবদান প্রসঙ্গে আসবে তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জির কথাও। 
২০০৬ সালে মৃত্যু হয় অনিল বিশ্বাসের। বাম রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নেতা এবং কর্মী–সমর্থকরা এখন ও মনে করেন প্রাক্তন এই সিপিএম রাজ্য সম্পাদকের রাজনীতির কৌশলটাই ছিল অন্য মাত্রার। বিরোধী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত বহু মানুষ আজও বলেন, গলার জোর অথবা পেশিশক্তি নয়, অনিল বিশ্বাস রাজনীতি করতেন মস্তিষ্ক দিয়ে। প্রসঙ্গত, ১৯৯৮ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের জন্মলগ্ন থেকেই মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে মতাদর্শগত রাজনৈতিক সংঘাত ছিল অনিল বিশ্বাসের। কারণ একদিকে মমতার উত্থান আর অন্যদিকে সেই সময় বাম রাজনীতির প্রধান চালিকাশক্তি আলিমুদ্দিনের দোতলার ঘরে বসে থাকা পার্টির তৎকালীন রাজ্য সম্পাদক অনিল বিশ্বাস। খুব স্বাভাবিকভাবেই তাই তৃণমূল নেত্রীর হাত দিয়ে যে দৈনিকের সূচনা হল গত ২১ শে জুলাই, সেখানে অনিল কন্যার লেখা ঘিরে রাজনৈতিক আলোড়ন তো হবেই।