সংবাদ সংস্থা
ওয়াশিংটন, ২৪ নভেম্বর

ভেবেছিলেন যে করেই হোক গদি আঁকড়ে পড়ে থাকবেন তিনি। কিন্তু যত দিন এগোল, বুঝতে পারলেন সেটা সম্ভব নয়। ভোটে কারচুপি হয়েছে, তাঁর এই অভিযোগ বার বার খারিজ করে দিয়েছে সে দেশের নির্বাচন কমিশন। তাঁর সতীর্থদের অনেকেই বলছিলেন, এবার তাঁর পরাজয় স্বীকার করার সময় এসে গিয়েছে।
তবে সরকারিভাবে এখনও পরাজয় স্বীকার না করলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সোমবার ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য মার্কিন প্রশাসনের জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (‌জিএসএ)–এর প্রধান এমিলি মার্ফিকে সবুজ সঙ্কেত দিয়েছেন। মার্ফিকে তিনি বলেছেন, ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য যা করার করুন। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, মুখে বলুন বা না বলুন, ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করার এই নির্দেশের অর্থই হল হার স্বীকার করে নেওয়া।‌‌ 
পরবর্তী প্রেসিডেন্টের হাতে ক্ষমতা তুলে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করতে ঢিলেমি করছিলেন মার্ফি। বিষয়টি নিয়ে জল ঘোলা হতে শুরু করে। মার্কিন কংগ্রেসের ডেমোক্র‌্যাট সদস্যরাই শুধু নন, ন’‌জন রিপাবলিকান সদস্যও জিএসএ–র সমালোচনায় সরব হন।  
আগামী ২০ জানুয়ারি, ইনঅগারেশন ডে–র দিন প্রেসিডেন্ট পদে বসবেন বাইডেন। কিন্তু তার আগে ক্ষমতা হস্তান্তর যাতে মসৃণ হয়, সে কারণে হবু প্রেসিডেন্ট একটি বিশেষ দল তৈরি করেন। বিদায়ী প্রশাসনই সেই দলের কাজকর্মের জন্য অর্থ বরাদ্দ করে। কিন্তু ট্রাম্প প্রশাসন সেটাই আটকে দিয়েছিল। কিন্তু এ বার নিজের ঘনিষ্ঠ মহল ও দলের মধ্যে গড়ে ওঠা চাপের মুখে জিএসএ প্রধানকে সবুজ সঙ্কেত দিতে বাধ্য হলেন ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, ক্ষমতা হস্তান্তরের দলকে অর্থ বরাদ্দের বিরোধিতা তিনি করছেন না। তাঁর ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য, ‘‌যেটা করতে হয়, করে ফেলুন।’‌ এর পরেই জিএসএ প্রধান এমিলি মার্ফি জানিয়ে দেন, বাইডেনের ‘‌ট্রানজিশন টিম’–এর‌ জন্য বরাদ্দ অর্থ ও অন্য সুযোগ–সুবিধা বরাদ্দ করা হচ্ছে।
ফল ঘোষণা হয়েছে বহু আগেই। তবু ট্রাম্প একের পর এক স্টেটের ফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে গেছেন আদালতে। ক্ষমতা হস্তান্তরে কোনও সাহায্যই করেননি। প্রয়োজনীয় গোয়েন্দা তথ্য সদ্য নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বাইডেনের কাছে পৌঁছতে দেননি। সরকারি তহবিল থেকে খরচের অনুমোদনও দেননি। যার জেরে বিপাকে পড়ে বাইডেন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের টিম। তবে সোমবার ট্রাম্পের সবুজ সঙ্কেত পাওয়ার পর এমিলি চিঠি লেখেন বাইডেনকে। জানান, ১৯৬৩ সালের প্রেসিডেন্সি ট্রানজিশন আইনের তিন নম্বর ধারা মেনে ভোট–পরবর্তী সমস্ত পরিষেবা এবং তহবিল বাইডেনের মনোনীত ‘‌টিম’‌ ব্যবহার করতে পারবেন।  ‌

জনপ্রিয়

Back To Top