আজকাল ওয়েবডেস্ক: প্রায় ৭০ বছর পর কোনও নারীকে প্রাণদণ্ড দিল আমেরিকার ফেডেরাল আইন। ৫২ বছরের লিসা এম মন্টগোমারির শরীরে বিষাক্ত বিষ ইঞ্জেকশনের প্রবেশ করিয়ে দেওয় হল চরমতম সাজা। ১৯৬৩ সালে প্রাণদণ্ড দেওয়াই বন্ধ করে দিয়েছিল মার্কিন প্রশাসন। গত বছর এই প্রথা ফিরিয়ে আনেন ডোনাল্ড ট্রাম্প, যিনি প্রাণদণ্ডের বড় ‘সমর্থক’ বলে পরিচিত। 
আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক মহিলার জঠর থেকে ভ্রূণ কেটে বের করে নেওয়ার অপরাধে ২০০৭ সালে অভিযুক্ত হয়েছিলেন লিসা। মহিলার প্রাণ গেলেও আশ্চর্যজনকভাবে বেঁচে যায় শিশুটি। লিসার আইনজীবী কেলি হেনরির দাবি, বহুদিন যাবত মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছেন তাঁর মক্কেল। জেলের চিকিৎসকরাও সে কথা জানেন। এ অবস্থায় প্রাণদণ্ড দেওয়ার কড়া নিন্দা করেছেন কেলি। বলছেন, এটা ক্ষমতার বেআইনি এবং অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার। 
মার্কিন মুলুকে শেষবার কোনও নারীকে প্রাণদণ্ড দেওয়ার ঘটনা ঘটেছিল ১৯৫৩ সালে। গত ১৭ বছরে মাত্র তিনজন পুরুষকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। তারপর এই লিজার ঘটনা। তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার রায় দিতে গিয়ে বহুবার বিভিন্ন কারণে বাধা এসেছে। ট্রাম্প থাকতে থাকতেই আরও দু’জনকে সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।       
 

জনপ্রিয়

Back To Top